ঈদে টিকিট কালোবাজারি ঠেকাতে তৎপর আইনশৃঙ্খলা বাহিনী

কলমের বার্তা / ১৪৫ বার পড়া হয়েছে।
সময় কাল : শনিবার, ১৬ এপ্রিল, ২০২২

ঈদুল ফিতর উপলক্ষে বাস, ট্রেন ও লঞ্চের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হতে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে বাসের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে। আগামী ২৩ এপ্রিল থেকে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি হবে। প্রায় একই সময়ে লঞ্চ টার্মিনালে অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হবে।

এই অগ্রিম টিকিট বিক্রির সময় সক্রিয় হয়ে ওঠে কালোবাজারিরা। কাউন্টারগুলোতে টিকিট পাওয়া যায় না। অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীদের যোগসাজশে কয়েক গুণ বেশি দামে টিকিট বিক্রি করে কালোবাজারিরা। কালোবাজারে টিকিট বিক্রি ঠেকাতে এবার সক্রিয় হয়ে উঠেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। ইতোমধ্যে ঢাকার পুলিশ কমিশনার এ সংক্রান্ত একটি চিঠি ইস্যু করে টিকিট কালোবাজারি ঠেকাতে সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ ও গোয়েন্দাদের নির্দেশনা দিয়েছেন।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম-কমিশনার হারুণ অর রশিদ বলেন, ‘ঈদকে কেন্দ্র করে ঘরমুখো মানুষ যাতে টিকেট কালোবাজারির খপ্পরে না পড়ে সেজন্য থানা পুলিশের পাশাপাশি গোয়েন্দা পুলিশও কাজ করছে। বাস, লঞ্চ ও রেল স্টেশনে আমরা নজরদারি রাখছি। এছাড়া অনলাইনে আমাদের নজরদারি রয়েছে। কেউ যাতে কালোবাজারি টিকিট অনলাইনে বিক্রি করতে না পারে সেজন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তৎপর রয়েছে।’

সংশ্লিষ্টরা জানান, ঈদুল ফিতর মুসলমানদের অন্যতম প্রধান ধর্মীয় উৎসব। আপনজনদের সঙ্গে ঈদ আনন্দ উদযাপন করতে ঢাকা থেকে বিপুলসংখ্যক মানুষ ঢাকার বাইরে বিভিন্ন জেলার উদ্দেশে রওনা দেয়। ঘরমুখো মানুষের চাপে বাস, ট্রেন এবং লঞ্চের টিকিটের চাহিদা বেড়ে যায়। সাধারণত লক্ষ করা যায়, টিকিটের চাহিদা বেড়ে যাওয়ার কারণে একশ্রেণির কর্মকর্তা-কর্মচারী কালোবাজারিদের সঙ্গে যোগসাজশ করে টিকিট সংগ্রহ করে কৃত্রিম সংকট তৈরি করে। পরবর্তী সময়ে কালোবাজারিরা কৌশলে এসব টিকিট বিভিন্নভাবে কয়েক গুণ বেশি দামে বিক্রি করে।

জানা গেছে, সবচেয়ে টিকিট কালোবাজারি বেশি হয়ে রেলওয়ে স্টেশনে। সড়কে যানজট ও নির্মাণ কাজ চলার কারণে যাত্রীরা বিভিন্ন রেলওয়ে স্টেশনে হুমড়ি খেয়ে পড়ে। রেলের টিকিটের চাহিদা বেশি থাকায় সারাবছরই স্টেশনগুলোকে কেন্দ্র করে কালোবাজারিরা সক্রিয় থাকে। ঈদের সময় এই চক্র আরও বেশি সক্রিয় হয়। যদিও চলতি বছর রেল কর্তৃপক্ষ রেলের টিকিট সংগ্রহের ক্ষেত্রে জাতীয় পরিচয়পত্র দেখানোকে বাধ্যতামূলক করেছেন।

তবে সংশ্লিষ্ট সূত্র বলছে, টিকিট কালোবাজারি চক্রের সঙ্গে খোদ রেলওয়ের একশ্রেণির অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীর যোগসাজশ রয়েছে। তারাই কৌশলে টিকিট সংগ্রহ করে কালোবাজারিদের হাতে তুলে দেয়। গত ১ এপ্রিল চট্টগ্রাম রেলওয়ে স্টেশন থেকে টিকিট কালোবাজারি চক্রের দুই সদস্যকে আটকের পর তারা জানায়, খোদ রেলওয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারীরাই তাদের টিকিট বিক্রির জন্য দেয়।

ঢাকা মহানগর পুলিশের একজন কর্মকর্তা জানান, এবারের ঈদে ঘরমুখো মানুষের যাতায়াত নির্বিঘ্ন তথা সহজতর করার লক্ষ্যে টিকিট কালোবাজারি রোধে ডিএমপি কমিশনার একটি নির্দেশনা জারি করেছেন। এতে বলা হয়েছে, ঢাকা মহানগরীর বিভিন্ন বাস টার্মিনাল অর্থাৎ গাবতলী, মহাখালী, সায়েদাবাদসহ অন্যান্য স্থানে বাসের টিকিট সংগ্রহে; ঢাকা মহানগরীতে অবস্থিত রেলওয়ে স্টেশন অর্থাৎ কমলাপুর, বিমানবন্দরসহ ট্রেনের টিকিট সংগ্রহের স্থানে এবং সদরঘাটসহ লঞ্চের টিকিট সংগ্রহের অন্যান্য স্থানে যেন কোনও ধরনের টিকিট কালোবাজারি না হয়, সেজন্য সংশ্লিষ্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এবং সংশ্লিষ্ট বিভাগের ডিবি টিমকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। প্রয়োজনে টিকিট কালোবাজারকারী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশনা দিয়েছেন তিনি। এছাড়া রেলের টিকিট কালোবাজারি প্রতিরোধে রেল পুলিশকে সর্বাত্মক সহায়তা করার কথাও বলা হয়েছে।

ঢাকার কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনের ওসি মাজহারুল ইসলাম  বলেন, ‘আমরা কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে সার্বক্ষণিক নজরদারি রাখছি। কেউ যাতে টিকিট কালোবাজারি করতে না পারে সেজন্য ২৪ ঘণ্টাই নজরদারি রাখা হয়। ঈদ উপলক্ষে এই নজরদারি আরও বাড়ানো হচ্ছে। আমরা চাই, ঈদে ঘরমুখো মানুষ যেন কোনও হয়রানির শিকার না হয়।’

106
Spread the love


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর