রবিবার, ১৩ জুন ২০২১, ০৮:২৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :

এই দুর্যোগেও সিএইচসিপি’র স্বেচ্ছাচারিতায় কমিউনিটি ক্লিনিক বন্ধ!

Reportar Name
  • সময় কাল : শুক্রবার, ১০ এপ্রিল, ২০২০
  • ১৮২ বার পড়া হয়েছে

উল্লাপাড়া প্রতিনিধি:

বাংলাদেশসহ সারা পৃথিবী মহামারি করোনার আক্রমণে বিচলিত ও প্রতিরোধে হিমশিম খাচ্ছে গোটা বিশ্ব। বাংলাদেশের সকল ডাক্তার ও স্বাস্থ্যসেবায় নিয়োজিত সংশ্লিষ্টদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। অনেক চিকিৎসক ও স্বাস্থকর্মীর সেবা বন্ধ রাখার কারণে প্রধানমন্ত্রী নিজেও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। এসব চিকিৎসক ও স্বাস্থকর্মীদের পোশা থেকে সরে যেতে বলেছেন। ঠিক সে সময়েই প্রধানমন্ত্রীর গ্রামীণ স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতকরণের স্বপ্নের বাস্তবায়ন কমিউনিটি ক্লিনিক শুধুমাত্র নিজের স্বেচ্ছাচারিতায় বন্ধ করে রেখেছেন ক্লিনিকে কর্মরত সিএইচসিপি নিশাত তাসলীম। এমনই ঘটনা ঘটেছে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার বাঙ্গালা ইউনিয়নের ঘোনা গাইলজানী কমিউনিটি ক্লিনিকে।

কর্মরত সিএইচসিপি নিশাত তাসলীম এর স্বেচ্ছাচারিতায় প্রায়ই কমিউনিটি ক্লিনিক বন্ধ থাকে ও নির্দিষ্ট সময়ে খোলা ও বন্ধ করা হয়না এমন অভিযোগের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার (৯ এপ্রিল) বেলা পৌণে ১১টার দিকে সরেজমিনে ঘোনা গাইলজানী কমিউনিটি ক্লিনিকে গিয়ে ক্লিনিকটি তালাবদ্ধ অবস্থায় দেখা যায়। তবে সাংবাদিকদের উপস্থিতির খবর পেয়ে অনেক্ষণ পরে সেখানে আসেন সিএইচসিপি নিশাত তাসলীম।

কমিউনিটি ক্লিনিক বন্ধ রাখার ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি আমার সুপারভাইজার এর নিকট থেকে সকালে আসতে ১ ঘণ্টা দেড়ি হবে বলে মৌখিক ছুটি নিয়েছি। তবে সেই মুহূর্তে আসার ব্যাপারে কোনো সদুত্তর দিতে না পারলেও প্রতিবেদকের সামনেই অনেককে ফোন করতে থাকেন তিনি।

প্রতিবেদক কমিউনিটি ক্লিনিক থেকে বের হয়ে তথ্যের ও বক্তব্যের জন্য ফিল্ড সুপারভাইজারের সঙ্গে কথা বলার কিছুক্ষণ পরেই (৯ এপ্রিল আনুমানিক দুপুর সাড়ে ১২টা) কমিউনিটি ক্লিনিক বন্ধের নিউজ সংগ্রহ করতে যাবার কারণে সিএইচসিপি নিশাত তাসলীম এর স্বামী মো. ইসমাইল হোসেন ফোন দিয়ে সাংবাদিকদের হুমকি ধামকি দেয়াসহ কমিউনিটি ক্লিনিকে সংবাদ সংগ্রহ করতে যাবার কারণ জানতে চান ও দেখে নেয়ার হুমকি দেন।

মৌখিক ছুটির বিষয়ে জানতে চাইলে ফিল্ড সুপারভাইজার (এইস আই) আব্দুল সামাদ বলেন, মৌখিক ছুটির কোনো নিয়ম আসলে নাই। আর আমার দেয়ারও কোনো এখতিয়ার নেই। তিনি শুধু সকালে আমাকে ফোন দিয়ে বলেছিলেন ক্লিনিকে যেতে ১ ঘণ্টা দেড়ি হবে, কোনো ছুটি আমার কাছে চাননি। তবে তিনি তার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে বিষয়টি জানিয়েছেন কি না জানতে চাইলে কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি এই কর্মকর্তা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সিরাজগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. জাহিদুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই, আপনার কাছ থেকেই শুনলাম। বিষয়টি খোঁজ খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহণ করবো।

Spread the love
  •  
  •  
  •  

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরও খবর
themesba-lates1749691102