সোমবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:১৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
সিরাজগঞ্জ সদরে টেংরা,পাবদা, গুলশা সাথে কার্প জাতীয় মাছ চাষ ওব্যবস্থাপনা বিষয়ক প্রশিক্ষণ অনু্ষ্ঠিত প্রাণনাশের হুমকি থানায় জিডি ও পুলিশ সুপারের নিকট অভিযোগ গাইবান্ধায় রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির বার্ষিক সাধারণ নির্বাচন ও কমিটি ঘোষনা হোসনেয়ারা হোসাইন স্মৃতি ফাউন্ডেশনের উদ্যােগে শিক্ষাবৃত্তি প্রদান,মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত কোটচাঁদপুরে ইউপি নির্বাচনে ১৯ জনের জামানত বাজেয়াপ্ত পপুলার লাইফের প্রধান কার্যালয়ে ক্লোজিং উপলক্ষে ব্যবসা উন্নয়ন সভা ও বীমা দাবীর চেক হস্তান্তর সিরাজগঞ্জে স্বাধীনতার সূর্বণজয়ন্তী ও মুজিববর্ষ উপলক্ষ্যে- মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা প্রদান সীতাকুণ্ডে মসজিদকে দুই ভাগে বিভক্ত করার প্রতিবাদে মুসল্লিদের বিক্ষোভ গাইবান্ধায় জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন উপলক্ষে সিভিল সার্জনের ওরিয়েন্টেশন কর্মশালা ভালুকায় আন্তর্জাতিক স্বেচ্ছাসেবী দিবস পালন

এলাকা জুড়ে নিন্দার ঝড় এনায়েতপুরে জনতা ক্লিনিকের ডাঃ নাজমুলের লাম্পট্য বেড়েই চলছে

Reportar Name
  • সময় কাল : শুক্রবার, ২১ আগস্ট, ২০২০
  • ১৩৩ বার পড়া হয়েছে

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি
সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুরের মন্ডলপাড়ায় অবস্থিত জনতা ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টার-২ এর চিকিৎসক নারী লোভী লম্পট মেডিকেল এ্যাসিষ্টেন্ট ডাঃ নাজমুলের একের পর এক ধর্ষন ও ধর্ষন চেষ্টার ঘটনায় এলাকা জুড়ে নিন্দার ঝড় বইছে। সবিশেষ ক্লিনিকের যুবতী এক আয়াকে জোড় করে ধর্ষন চেষ্টার ঘটনা চাঞ্চল্যে নতুন মাত্রা বাড়িয়েছে। অতীতের ন্যায় এ ঘটনাটিও ধামাচাপা দিতে একটি চক্র ডাঃ নাজমুলের কাছ থেকে কয়েক লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে কোন ব্যবস্থা না নিতে নির্যাতীতাকে কৌশলে চাপ সৃষ্টি করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এদিকে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জনতা ক্লিনিকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শামীম আহমেদ জানিয়েছেন, লম্পট ডাঃ নাজমুল হাসপাতালের নারী কর্মচারী ও চিকিৎসা নিতে আসা মহিলাদের ধর্ষন ও শ্লীলতহানীর ঘটনায় আমাদের হাসপাতালের সুনাম চরম ভাবে খর্ব করায় তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়া ঐ লম্পট চিকিৎসকের এসব নির্যাতনের ঘটনা তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেবার কথা জানিয়েছে সিভিল সার্জন।

জানা যায়, ২০০৩ সালে এনায়েতপুরে প্রতিষ্ঠা করা হয় জনতা ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টার। এরপর স্বাস্থ্য সেবা প্রতিষ্ঠানটি এলাকায় সুনাম অর্জন করলে পরিধি বাড়াতে ২০১৮ সালে মন্ডলপাড়ায় জনতা ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টার-২ করে তাড়াশ উপজেলার মথুরাপুর গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে মেডিকেল এ্যাসিষ্টেন্ট ডাঃ নাজমুল ইসলামকে দায়িত্ব দেয়া হয়। প্রতিষ্ঠানের মালিক শামীম আহমেদ অন্যান্য ব্যবসায়ীক কাজে নিয়োজিত থাকায় হাসপাতালের তদারকির দায়িত্ব দেন মালিকানায় শেয়ারে থাকা শিক্ষক বিনদহ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শহিদুল্লাহ লিটনকে। পুর্ব থেকেই নারী লোভী ১ সন্তানের জনক লম্পট ডাঃ নাজমুল ইসলামের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ। তার কাছে চিকিৎসা নিতে যাওয়া নারীরা হন নানা ভাবে যৌন হয়রানীর শিকার। এছাড়া বেসরকারী এ হাসপাতালের নারী কর্মচারী থেকে আয়ারাও কু-নজরে পড়েছেন। লালসার অনেক ঘটনা প্রকাশ্যে আসায় টাকা দিয়ে আর হাত পা ধরে ক্ষমা চেয়ে পাড় পেয়েছেন ডাঃ নাজমুল। তার পরও তার এসব কু-কৃত্তি বন্ধ হয়নি।
গত আড়াই বছর আগে জনতা ক্লিনিকে কর্মরত বা²নগ্রামের এক আয়াকে ডাঃ নাজমুল ধর্ষনের চেষ্টা করে। এরপর মেয়েটি পরিবারের সদস্যদের জানালে সালিসী বৈঠককে হাত-পা ধরে ক্ষমা চেয়ে পাড় পায়।
একই ভাবে গত বছর খানেক আগে খোকশাবাড়ি গ্রামের প্রবাসীর এক স্ত্রী চিকিৎসা নিতে আসলে তার উপর কু নজর দেয় এবং শ্লীলতাহানীর চেষ্টা চালায় ডাঃ নাজমুল। বিষয়টি তার অভিভাবকেরা জানতে পারলে স্থানীয় মাতব্বরদের সহযোগীতায় মোটা অংকের টাকা দিয়ে বিষয়টি ম্যানেজ করা হয়।
এরকম আরো অনেক ঘটনা রয়েছে ডাঃ নাজমুলের বিরুদ্ধে। সর্বশেষ গত ১৮ আগষ্ট রাতে জনতা ক্লিনিক-২ তে অবস্থান কালে এক আয়াকে শ্লীলতাহানীর চেষ্টা করে তিনি। বিষয়টি নির্যাতনের শিকার মেয়েটি কয়েক জনকে জানালে ধামাচাপা দেয়ার জন্য উঠে পড়ে নারী লোভী নাজমুল। অভিযোগ উঠেছে গত বৃহস্পতিবার দুপুরে স্থানীয় একটি চক্রের মাধ্যমে মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে নির্যাতিত মেয়েকে নিয়ে সমঝোথা হয়েছে।
ডাঃ নাজমুলের বিষয়ে হাসপাতালের মুল চিকিৎসক ডাঃ সাখাওয়াত হোসেন জানান, একের পর এক ঘটনায় আমাদের হাসপাতালটি পতিতালয় বানিয়েছে ডাঃ নাজমুল। এলাকার এক শ্রেণীর মাতব্বরকে টাকা দিয়ে ঘটনা ধামাচাপা দিয়ে সে বার-বার পাড় পেয়ে যাচ্ছে। জনতা ক্লিনিক টু এর আয়া নিজে আমার কাছে অভিযোগ করে বলেছে, ‘মাঝে মাঝেই আমাকে কু প্রস্তাব দিয়েছে নাজমুল ডাক্তার। কয়েক দিন আগে সে আমাকে ধর্ষনের চেষ্টা চালিয়েছে? ’ আসলে তার জন্য হাসপাতালের মানহানী হচ্ছে। তবে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছেনা। এ ব্যাপারে জরুরী পদক্ষেপ নেয়া দরকার।
বিষয়টি নিয়ে ডাঃ নাজমুল ইসলাম অস্বীকার করে জানান, সাধারন ঘটনা নিয়ে আয়া প্রিয়াংকার সাথে মনমালিন্য হওয়ায় তা মিমাংসা করে নেয়া হয়েছে।
সিরিয়াল লম্পট ডাঃ নাজমুলের এসব অপকর্মের বিষয়ে জনতা ক্লিনিকের এমডি শামীম আহমেদ জানান, হাসপাতালের দীর্ঘ দিনের সুনাম নষ্ট করেছে লম্পট ডাঃ নাজমুল ইসলাম। সর্বশেষ জনতা-২ ক্লিনিকের এক আয়াকেও ধর্ষনের চেষ্টা করেছে বলে কর্তৃপক্ষের নির্দেশে আইনগত ব্যবস্থা নেবার পাশাপাশি হাসপাতাল থেকেও তাকে স্থায়ী ভাবে বহিস্কার করা হবে।
ঘটনাটি নিয়ে এনায়েতপুর থানার ওসি মোল্লা মাসুদ পারভেজ জানান, নির্যাতীতার অভিযোগ পেলে লম্পট চিকিৎসকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
আর জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের সিভিল সার্জন ডাঃ জাহিদুল ইসলাম জানিয়েছেন, চিকিৎসকের হাতে নারীরা অনিরাপদ। বিষয়টি আসলেই দুঃখজনক। দায়ী চিকিৎসকের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Spread the love

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরও খবর
এই নিউজ পোর্টাল এর কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি ও দণ্ডনীয় অপরাধ ।  About Us | Contact Us | Terms & Conditions | Privacy Policy
Design & Developed by Freelancer Zone
themesba-lates1749691102