বুধবার, ১৬ জুন ২০২১, ০৪:৫১ পূর্বাহ্ন

করোনায় গাজীপুরে মানবেতর জীবন যাপন করছে কম্পিউটার ট্রেনিং সেন্টারের পরিচালকরা

Reportar Name
  • সময় কাল : মঙ্গলবার, ৩০ জুন, ২০২০
  • ৩০১ বার পড়া হয়েছে

মোঃ মোখলেছুর রহমান স্টাফ রিপোর্টারর:

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা গত ১১ মার্চ (কোভিড-১৯) করোনাভাইরাসকে মহামারী ঘোষণা করার পর ১৬ মার্চ থেকে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধে সরকারি আদেশ জারি করা হয়। এরি ধারাবাহিকতায় করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে গাজীপুরেও সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, কোচিং সেন্টার,কারিগরি শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত কম্পিউটার ট্রেনিং সেন্টার বন্ধ রাখার এবং ব্যক্তিগত পর্যায়ে ব্যাচ পড়ানোর ব্যাপারেও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। গাজীপুরে কারিগরি শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত প্রায় ৬০ টিরও অধিক কম্পিউটার ট্রেনিং সেন্টার রয়েছে। যাদের বেশীর ভাগই ভাড়া নিয়ে গড়ে তুলেছেন ট্রেনিং সেন্টার। বর্তমানে (কোভিড-১৯) করোনাভাইরাস এর কারণে প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় অত্যান্ত মানবেতর জীবন যাপন করেছেন তারা। মাস শেষে দিতে হচ্ছে অফিস ভাড়া এর সাথে আবার যোগ হচ্ছে ভূতরে বিদ্যুৎ বিল এ যেন কাটা ঘায়ে লবনের ছিটা। গাজীপুরে যুব সমাজকে বিভিন্ন ট্রেডে প্রশিক্ষণ দিয়ে স্বাবলম্বী করে তোলার জন্য কারিগরি শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত প্রশিক্ষণ কেন্দ্র স্থাপন করা হয় জেলার বিভিন্ন জায়গায়। তিনমাস এবং ছয়মাসের কোর্সে গ্রাফিক ডিজাইন,অফিস অ্যাপলিকেশন, আইটি সাপোর্ট টেকনিশিয়ান, আউট সোর্সসিং/ ফ্রিল্যান্সিং,অটো ক্যাব ওয়েব ডিজাইনে কারিগরি প্রশিক্ষণ দেওয়া হয় ট্রেনিং সেন্টার গুলোতে।
সুমাইয়া নামের একজন শিক্ষার্থী বলেন, জানুয়ারিতে ৬ মাসের কোর্সে ভর্তি হয়েছি। কিন্তু করোনাভাইরাস প্রাদূর্ভাবের কারণে আর ট্রেনিংকরতে পারছিনা। যদি ও ইতিমধ্যে অনলাইনে ক্লাস শুরু হয়েছে। কিন্তু হাতে কলমে শিক্ষার মতো আমরা অনলাইনে শিখতে পারছিনা। তৌফীকা কম্পিউটার ট্রেনিং সেন্টারের শিক্ষক শাকিল বলেন,আমরা গত তিনমাস যাবত কোন বেতন পাচ্ছিনা। পরিবার পরিজন নিয়ে অত্যান্ত মানবেতর জীবন যাবন করছি। যদি সরকারী ভাবে আমাদের জন্য প্রণোদনার ব্যবস্থা করা হতো পরিবার পরিজন নিয়ে চলতে পারতাম।
বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় বেসিক ট্রেড শিক্ষক সমিতির আইসিটি বিষয়ক সম্পাদক ও গাজীপুর জেলা বেসিক ট্রেড ইন্সটিটিউট এসোসিয়েশন এর সভাপতি মোঃ শামীম আল মামুন খান বলেন, সারাদেশে ৩ হাজার ৫০০ মতো কারিগরি শিক্ষাবোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত কম্পিউটার ট্রেনিং সেন্টার রয়েছে।
শুধু গাজীপুরেই রয়েছে ৬০ টি। গাজীপুরে ৬০ টি সেন্টারে প্রায় ৪০০ শিক্ষকের মাধ্যমে ৬ হাজার ৫০০ শিক্ষার্থীকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হতো।
কিন্তু করোনাভাইরাস এর কারণে নতুন করে কোন শিক্ষার্থীও ভর্তি হচ্ছেনা। যারা তিনমাস ও ছয়মাসের কোর্সে ভর্তি হয়েছিলো তারাও ক্লাস করতে পারছেনা। ক্লাস করতে না পারায় কোর্স ফি পরিশোধ করছেনা শিক্ষার্থীরা। কোর্স ফি না পেয়ে বিপাকে পরেছেন প্রতিষ্ঠানের পরিচালক । দিতে পারছেননা শিক্ষকদের বেতন অফিস ভাড়া ও বিদ্যুৎ বিল।

Spread the love
  •  
  •  
  •  

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরও খবর
themesba-lates1749691102