বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন ২০২১, ১২:৪৭ অপরাহ্ন

টঙ্গীতে স্ত্রীকে ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় কিশোর গ্যাং এর হামলা 

গাজীপুর প্রতিনিধি
  • সময় কাল : বৃহস্পতিবার, ৬ মে, ২০২১
  • ৬২ বার পড়া হয়েছে
গাজীপুরের টঙ্গীতে স্ত্রীকে ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় স্বামীর বসত বাড়িতে হামলা করেছে একটি কিশোর গ্যাং সদস্যরা । এঘটনায় ওই পরিবারকে
উল্টো মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ উঠেছে।  ভুক্তভোগী পরিবারের পক্ষে টঙ্গী পূর্ব থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের  করেছেন ।
জানা যায়, গত মাসের ২৬ এপ্রিল সন্ধ্যায় নগরীর ৪৭ নং ওয়ার্ডের মরকুন পূর্বপাড়া এলাকায় মৃত পারভেজ আলীর বসতবাড়িতে এ হামলার ঘটনা ঘটে । হামলায় ঘটনায় মৃত পারভেজ আলীর স্ত্রী বাদী মরকুন কোকোলাগেট এলাকার খলিল এর ছেলে কিশোর গ্যাং নেতা হামীম (২০) এর বীরুদ্ধে টঙ্গী পূর্ব থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায়,  গত মাসের ২৬ এপ্রিল রাত ৮:১৫ মিনিটের দিকে ৫/৬ জনের খন্ড খন্ড গ্রুপ নিয়ে কিশোর গ্যাং নেতা হামীম ভুক্তভোগী পারভেজ আলীর বসত বাড়িতে হামলা করে ভাংচুর ও তার ছেলে হাসিবকে খোঁজ করতে থাকে। ভাগ্যক্রমে হাসিব তার স্ত্রী ও মাকে নিয়ে উত্তরার লেকভিউ হাসপাতালে থাকায় তারা প্রাণে বেঁচে যান ।  হাসপাতালের সিসি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজে যা স্পষ্ট দেখা যায় । একপর্যায়ে এলাকাবাসী একত্রিত হয়ে সন্ত্রাসীদের প্রতিরোধের চেষ্টা করে ।  কিন্তু ৫০/৬০ জনের সশস্ত্র হামলাকারীরা আহত করে বেশ কয়েকজনকে। সিসি ক্যামেরার ফুটেজে আরও দেখা যায়, এরপর সন্ত্রাসীরা হামলা চালায় মফিজ তালুকদারদের বসতবাড়িতে। পরে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দিলে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যায় হামলাকারী কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা। এরপর পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে চলে আসে । ঘটনার পর নাটকীয়ভাবে বেশ কয়েকজনকে আসামী করে মামলা দায়ের করে ঘটনায় আহত হামলাকারী শিমুল (১৯) এর মা জোবায়দা বেগম । মামলার বিষয়ে বাদী জোবায়দা বেগমের কাছে তার ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে একাধিকবার ফোন দেওয়া হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক জুলহাস উদ্দিন বলেন, তদন্ত করে অভিযুক্তদের আইনের আওতায় আনা হবে। তবে এই মামলায় দুই জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানান, ওই কর্মকর্তা। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, আমান উদ্দিন খান (২১), আলামিন হোসেন হৃদয়(২০)।
হামলার ভুক্তভোগী রহীমা বেগম জানান, আমার ছোট ছেলের বউ অসুস্থ থাকায় চিকিৎসার জন্য ওই সময়ে উত্তরা একটি হাসপাতালে ছিলাম।
অভিযোগ তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক মোঃ তোফাজ্জল হোসেন জানান, আমাকে উভয় পক্ষই জানিয়েছেন আগামী শুক্রবার বসে মীমাংসার করা হবে। তারপরও যদি পরিবারের কোনো অভিযোগ থাকে তাহলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
Spread the love
  •  
  •  
  •  

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরও খবর
themesba-lates1749691102