শিরোনামঃ
আশা জাগাচ্ছে বায়ুবিদ্যুৎ ডিসেম্বরে ঘুরবে ট্রেনের চাকা মূল্যস্ফীতি হ্রাসে ব্যাংক থেকে ঋণ কমাতে চায় সরকার বদলে যাবে হাওরের কৃষি বাংলাদেশে নতুন জলবায়ু স্মার্ট প্রাণিসম্পদ প্রকল্প চালু যুক্তরাষ্ট্রের ‘তথ্য দেওয়ার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকে ৩ জন মুখপাত্র নিয়োগ দেওয়া হয়েছে’ অস্বস্তি কাটিয়ে যুক্তরাষ্ট্র-বাংলাদেশ সম্পর্কে নতুন মোড় এমপিদের শুল্কমুক্ত গাড়ি আমদানি সুবিধা উঠে যাচ্ছে ভূমি অধিগ্রহণ জটিলতা দূর ৫০০ একর খাসজমি বরাদ্দ স্বাধীনতাবিরোধীদের পদচিহ্নও থাকবে না: রাষ্ট্রপতি আজ জাতীয় এসএমই পণ্য মেলা উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী দশতলা বিল্ডিং এর ছাদ থেকে লাফ দিয়ে নারী পোশাক শ্রমিকের মৃত্যু বাগবাটি রাজিবপুর অটিস্টিক ও বুদ্ধি প্রতিবন্ধী স্কুলে হুইল চেয়ার বিতরণ সিরাজগঞ্জ পৌরকর্মচারী ইউনিয়নের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত  কাজিপুর খাদ্য গুদামে অভ্যন্তরীণ বোরো -ধান চাউল সংগ্রহ এর উদ্বোধন আদিতমারীতে ধান-চাল ক্রয়ের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঠাকুরগাঁওয়ে শিশু নিবির হত্যা মামলায় গ্রেফতার আরেক শিশু বেনাপোল সীমান্তের চোরা পথে ভারতে যাবার সময় মিয়ানমার নাগরিকসহ আটক-৪ বিয়েতে রাজি না হওয়ায় আত্নহত্যা, প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে হত্যা মামলা সিরাজগঞ্জে সাংবিধানিক ও আইনগত অধিকার বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

পোশাকের পর শতকোটি ডলারের ঘরে তিন খাত

কলমের বার্তা / ১৫৯ বার পড়া হয়েছে।
সময় কাল : বুধবার, ১১ মে, ২০২২

দেশের পণ্য রপ্তানি খাতকে দীর্ঘদিন ধরে একাই টেনে নিয়ে যাচ্ছে তৈরি পোশাকশিল্প। দেরিতে হলেও পোশাকের পর একসঙ্গে তিনটি খাত—হোম টেক্সটাইল, কৃষি প্রক্রিয়াজাত পণ্য এবং চামড়া ও চামড়াজাত পণ্যের রপ্তানি ১০০ কোটি বা ১ বিলিয়ন ডলারের মাইলফলকে পৌঁছেছে। পাট ও পাটজাত পণ্যের রপ্তানিও শতকোটি ডলার ছুঁই ছুঁই করছে।

সব মিলিয়ে করোনার পর চলতি ২০২১–২২ অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে (জুলাই-এপ্রিল) পণ্য রপ্তানিতে বেশ ভালো করেছে বাংলাদেশ। তাতে দুই মাস বাকি থাকতেই চলতি অর্থবছরের যে লক্ষ্যমাত্রা ছিল তার কাছাকাছি পণ্য রপ্তানি হয়েছে। এই অর্থবছরে পণ্য রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা ৪ হাজার ৩৫০ কোটি ডলার। আর চলতি অর্থবছরের ১০ মাসে রপ্তানি হয়েছে ৪ হাজার ৩৩৪ কোটি মার্কিন ডলারের পণ্য। দেশীয় মুদ্রায় যা পৌনে ৪ লাখ কোটি টাকার সমান। এই আয় গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ৩৫ শতাংশ বেশি।

সবকিছু ঠিক থাকলে পণ্য রপ্তানি চলতি অর্থবছর শেষে ৫ হাজার কোটি ডলারের মাইলফলকে পৌঁছে যাবে বাংলাদেশ। এর আগে এক বছরে সর্বোচ্চ রপ্তানি হয়েছিল ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৪ হাজার ৫৩ কোটি ডলার। করোনার কারণে পরের দুই বছরে রপ্তানি কম হয়।

রপ্তানি আয়ের এই হালনাগাদ পরিসংখ্যান গতকাল সোমবার প্রকাশ করেছে রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি)। এতে দেখা যায়, গত এপ্রিল মাসে ৪৭৪ কোটি ডলারের পণ্য রপ্তানি হয়েছে, যা দেশীয় মুদ্রায় ৪০ হাজার ৯৭৭ কোটি টাকার সমান। টাকার এই পরিমাণটা কত, সেটি বুঝতে একটা উদাহরণ দেওয়া যেতে পারে। পদ্মা সেতু প্রকল্পের ব্যয় ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি টাকা। যাহোক, গত এপ্রিলে পণ্যের রপ্তানি গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ৫১ শতাংশ বেড়েছে।

চা, শাকসবজি, ফলমূল, মসলাসহ কৃষি প্রক্রিয়াজাত পণ্য রপ্তানি প্রথমবারের মতো শতকোটি ডলারের মাইলফলকে পৌঁছেছে। চলতি অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে ১০৪ কোটি ডলারের কৃষি প্রক্রিয়াজাত পণ্য রপ্তানি হয়েছে। গত বছর এ খাতের রপ্তানির পরিমাণ ছিল ৮৬ কোটি ডলার। সে হিসাবে চলতি অর্থবছরের দুই মাস বাকি থাকতেই গত বছরের চেয়ে ১৮ কোটি ডলারের বেশি পণ্য রপ্তানি হয়েছে।

জানতে চাইলে প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের বিপণন পরিচালক কামরুজ্জামান কামাল বলেন, ‘কৃষি প্রক্রিয়াজাত পণ্যের চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ায় রপ্তানি আয় বেড়েছে। এ ছাড়া আগের চেয়ে বিস্কুট ও বেকারি পণ্য, কনফেকশনারি এবং মসলার রপ্তানির পরিমাণও বাড়াতে সক্ষম হয়েছি আমরা। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ ও জাহাজসংকট না থাকলে রপ্তানিতে আরও ভালো প্রবৃদ্ধি থাকত।’

চামড়া ও চামড়াজাত পণ্যের রপ্তানি বেশ কয়েক বছর পর শত১কোটি ডলারের ঘরে ফিরেছে। পরিবেশদূষণের কারণে ২০১৬-১৭ অর্থবছরের পর এ খাতের রপ্তানি কমতে থাকে। গত দুই বছর রপ্তানি ছিল শতকোটি ডলারের নিচে। চলতি অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে ১০১ কোটি ডলারের চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য রপ্তানি হয়েছে। এই আয় গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ৩৩ শতাংশ বেশি।

হোম টেক্সটাইল রপ্তানি গত অর্থবছর ১ বিলিয়ন ডলারের মাইলফলকে পৌঁছায়। চলতি অর্থবছর শেষ হওয়ার দুই মাস আগেই গত বছরের রপ্তানিকে ছাড়িয়ে গেছে হোম টেক্সটাইল খাত। গত ১০ মাসে ১৩৩ কোটি ডলারের হোম টেক্সটাইল রপ্তানি হয়েছে। এই আয় গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ৩৯ শতাংশ বেশি। এদিকে পাট ও পাটজাত পণ্যের রপ্তানি টানা দুই বছর পর গত অর্থবছর শতকোটি ডলারের ঘরে পৌঁছায়। চলতি বছরও সেই ধারা বজায় থাকবে। কারণ, এখন পর্যন্ত পাট ও পাটজাত পণ্যের রপ্তানি ৯৭ কোটি ডলার।

রপ্তানিতে বরাবরের মতো শীর্ষ স্থানে রয়েছে তৈরি পোশাক। গত এপ্রিল পর্যন্ত ১০ মাসে ৩ হাজার ৫৩৬ কোটি ডলারের পোশাক রপ্তানি হয়েছে। এই আয় গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ৩৬ শতাংশ বেশি। শুধু এপ্রিলে ৩৯৩ কোটি ডলারের পোশাক রপ্তানি হয়েছে। এ ক্ষেত্রে প্রবৃদ্ধি ৫৬ শতাংশের মতো।

বিকেএমইএর সাবেক সভাপতি ফজলুল হক বলেন, তৈরি পোশাক রপ্তানিতে উচ্চ প্রবৃদ্ধি ধরে রাখাই আগামী বছরের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। ইতিমধ্যে ক্রয়াদেশের হার কিছুটা পড়তির দিকে। আগামী জুন-জুলাই থেকেই রপ্তানি আয়ে তা প্রকাশ পাবে। রপ্তানি ধরে রাখতে উদ্যোক্তাদের নতুন উদ্যোগ লাগবে।

96


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর