মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১, ০৬:০২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মোমিনুর ইসলাম  সাদ্দাম হোসেন তন্বয় মানব কল্যাণ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ঈদ উপহার বিতরণ ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন কাউন্সিলর আলমগীর হোসেন মাস্টার পূবাইল বাসীকে পবিত্র ঈদ উল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রকিবুল হাসান নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে অসহায় কর্মহীন মানুষের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ সিরাজগঞ্জে জলিল ট্রাস্টের উদ্যোগে ৫০০ শত পরিবারের মাঝে উপহার সামগ্রী বিতরণ উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মিথ্যা সংবাদের প্রতিবাদে পৌর মেয়রের সংবাদ সম্মেলন শাহজাদপুরে আলোকবর্তিকা ৩’শ দরিদ্র পরিবারে ঈদের আনন্দ ছড়ালো সুন্দরগঞ্জে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে সাংসদ শামীম পাটোয়ারীর মতবিনিময় অনুষ্ঠিত শাহজাদপুরে নগদ অর্থ বিতরন করলেন এমপি স্বপন

বঙ্গবন্ধুর প্রেমে নুরুল বাবুর্চি

নিজস্ব প্রতিবেদক:
  • সময় কাল : শনিবার, ২৭ মার্চ, ২০২১
  • ১০২ বার পড়া হয়েছে

২৬ মার্চ সন্ধ্যার দিকে হাটিকুমরুল থেকে সিরাজগঞ্জ যাচ্ছিলাম। চোখে পড়ে ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কের পাদদেশে সিরাজগঞ্জের সলঙ্গা থানার ধোপাকান্দি নয়ন ইটভাটা খোলামাঠে জমকালো অনুুষ্ঠান।

সেখানে গিয়ে দেখা মেলে পরিচিত কয়েক জনের সাথে। তাদের মাধ্যমে জানতে পারলাম নুরুল নামের এক বাবুর্চির দেশপ্রেম সম্পর্কে। তার বাড়ি রংপুর তারাগঞ্জ উপজেলার ঝাকুয়াপাড়া গ্রামে। আজিজ উদ্দিনের দরিদ্র ঘরে তার জন্ম। বর্তমান বয়স ৫০ বছর। সে বাবুর্চির চাকরি করেন মিরাক্তার লিমিটেড নামের এক ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানে।ছোট বেলাতেই প্রেমে পড়েন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের।

গ্রামাঞ্চলের যেখানেই কোন অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষন বেজে উঠতো সেখানেই চলে যেতেন নুরুল ইসলাম বাবুর্চি। নুরুল ইসলামের সাথে কথা হয় এ প্রতিবেদকের। খুবই মিষ্টভাষী নুরুল ইসলাম বলেন,ছোট বেলায় যখন বঙ্গবন্ধুর ভাষন শুনতাম তখন খুবই ভাল লাগতো এবং শরিরের লোম খাড়া হয়ে যেতো। আর ভাষনটি বার বার শুনতে ইচ্ছে হতো। বয়সবাড়ার সাথে সাথে প্রেমের গভীরতাও বাড়তে থাকে। এর পর থেকে সিদ্ধান্ত নেই যে কোন জাতীয় দিবস নিজ খরচে পালন করার।

তখন থেকে যেখানেই কর্মরত অবস্থায় থেকেছি সেখানেই জাতীয় দিবস গুলো নিজ খরচে পালন করেছি। অল্প বেতনে চাকরি করি। অনেকেই আমাকে এবং আমার অনুষ্ঠানে সহযোগিতা করতে চান কিন্তুু আমি কারো অর্থনৈতিক সহযোগিতা গ্রহন করিনি। প্রতিটি অনুূষ্ঠানে কি পরিমান ব্যয় হয়? এমন প্রশ্নের জবাবে নুরুল ইসলাম জানান,জাতীয় দিবস গুলো পালনের জন্য বছরে ৬০ থেকে ৭০ হাজার টাকা বাজেট রাখি। পক্ষান্তরে আমার বার্ষিক আয় প্রায় দেড় লক্ষাধিক টাকা। যা দিয়ে সংসার চালানোই কঠিন।

৩৭বছর তার বাবুর্চির চাকরির বয়স। কর্মের তাগিদে দেশের বিভিন্ন জেলায় অবস্থান করতে হয় নুরুল বাবুর্চির। ইতিপুর্বে তিনি পঞ্চগড়,সিলেট,সুনামগঞ্জ, গোপালগঞ্জের মোকসেদপুর, কোনাবাড়ি,গাজীপুর বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট, সখিপুর আনছার একাডেমির সামনে,দিনাজপুরের সেতাবগঞ্জসহ প্রায় ৭/৮টি জেলায় জাতীয় দিবস গুলো নিজ উদ্যোগে পালন করেছে। অনুষ্ঠান সূচির মধ্যে আলোচনা সভা,খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

Spread the love
  •  
  •  
  •  

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরও খবর
themesba-lates1749691102