• বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ০৪:৪৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
বেনাপোল সীমান্তে বিএসএফের গুলি বর্ষণের শঙ্কা, সতর্কতায় বিজিবির মাইকিং খুলনা বিভাগে শপথ নিলেন দ্বিতীয় ধাপে জয়ী চেয়ারম্যানগণ সিরাজগঞ্জে ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত দাবি হামার একটাই ঠাকুরগাঁওয়ে বিমানবন্দর ও মেডিকেল কলেজ চাই জয়পুরহাটে রাস্তা কেটে সরু করায় দূর্ভোগে অর্ধশতাধিক পরিবার বেনাপোলে ঈদকে ঘিরে টুং-টাং শব্দে ব্যস্ত কামার শিল্পীরা! শিবরাম আদর্শ পাবলিক স্কুলে ফল উৎসব পালিত দেশের চেয়ে কম দামে বিদ্যুৎ দিচ্ছে নেপাল খুলছে বাংলাদেশের তৃতীয় বৃহত্তম শ্রমবাজার, বৈধতা পাবেন ৯৬ হাজার বাংলাদেশি ব্যাংকের খরচে কর্মকর্তাদের বিদেশ যাত্রায় নিষেধাজ্ঞা বিদেশি বিনিয়োগ ও অপারেশনাল মডেলের নবযুগের সূচনা মালয়েশিয়া যেতে না পারাদের টাকা ফেরতের চেষ্টা টিসিবির জন্য ৫৩৭ কোটি টাকার ডাল-তেল কিনবে সরকার ডেঙ্গু মোকাবিলায় ৫২ কোটি টাকা বরাদ্দ পুলিশের মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে কাজ করা হচ্ছে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আর্থ-সামাজিক উন্নয়নেও কাজ করছে রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়ন্স অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ করলেন প্রধানমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের ঘর তৈরি করে দেব সলঙ্গা নলকা ইউনিয়নে ঈদ উপহার বিতরণ ঈদুল আজহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি আজিজুল বারী হেলাল

মোঃ আব্দুল আজিজ স্টাফ রিপোর্টার

ভাঙ্গুড়ায় অভিযুক্ত স্বীকার করলেও তদন্তে সত্যতা পাননি মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা

কলমের বার্তা / ২৫৯ বার পড়া হয়েছে।
সময় কাল : বুধবার, ৮ জুন, ২০২২

পাবনার ভাঙ্গুড়ায় প্রধানমন্ত্রীর হত দরিদ্রদের জন্য বিশেষ খাদ্য সহায়তা কর্মসূচী (ভিজিডি) কার্ডে টিপসই নিয়ে ভিজিডি কার্ডের চাউল না দিয়ে ফিরিয়ে দেওয়ার ঘটনায় মন্ডতোষ ইউপি চেয়ারম্যান আফছার আলী ও সংশ্লিষ্ঠ ৬ নং ইউপি সদস্য আরিফুল ইসলাম স্বপন এর বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে লিখিত অভিযোগের তদন্ত প্রায় ৩ মাস পরে সম্পন্ন হয়েছে। অভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করলেও তদন্তকারী কর্মকর্তা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা হাসনাৎ জাহান তদন্তে ঘটনার কোনো সত্যতা পান নি মর্মে উল্লেখ করেছেন।

অনুসন্ধানে জানা যায়, উপজেলার মন্ডতোষ ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ড, মল্লিকচক গ্রামের মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর খাদ্য বান্ধাব কর্মসূচী ভিজিডি হতদরিদ্র মোঃ আলম এর স্ত্রী (১২৭) নং কার্ড ধারী মোছাঃ শাকিলা খাতুনের কাছ থেকে গত কয়েক মাস পূর্বে ৫ হাজার টাকা দাবি করেন ইউপি সদস্য আরিফুল ইসলাম ও চেয়ারম্যান আফছার আলী। হতদরিদ্র কার্ড ধারী শাকিলা খাতুন তাদের(ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যে) চাহিদা মাওফিক ৫ হাজার টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন। এর পর ভিজিডি সুফল ভুগী অর্থাৎ কার্ড ধারী ইউনিয়ন পরিষদে চাউল আনতে গেলে ইউপি চেয়ারম্যান আফছার আলীর নির্দেশে ইউপি সদস্য আরিফুল ইসলাম স্বপন কার্ডে টিপসই নিয়ে চাউল না দিয়েই কার্ড কেড়ে নিয়ে হত দরিদ্র শাকিলাকে অপমান অপদস্ত করে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে বের করে দেন। এরপরে ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্য স্থানীয় ভাবে ভিজিডি কার্ড ধারীকে মৃত আজিম উদ্দিনের ছেলে মোঃ ফারুক হোসেনের মাধ্যমে টাকার জন্য চাপ প্রয়োগ করতে থাকেন। ঘটনার হাত থেকে বাঁচতে কার্ড ধারী শাকিলা ধার দেনা করে পরের দিন ইউপি চেয়ারম্যানকে ২ হাজার টাকা দিতে গেলে টাকা ৫ হাজারের কম হওয়ায় তা না নিয়ে আরো তাকে বলেন ৫ হাজার টাকার একটি পয়সা কম হলে কার্ড কেটে দেব বলে হুমকি দেন। ৪ মাস পর শাকিলাকে ইউনিয়ন পরিষদের ডেকে নিয়ে জোরপূর্বক বইয়ে টিপসই নিয়ে তিন মাসের তিন বস্তা চাউল বিক্রি করে চাঁদার টাকা আদায় করেন ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্য। এ সময় ভুক্তভোগীর পরপর ৩ মাসের তিনটি স্বাক্ষর নিয়ে সঞ্চয়ের ২শত করে টাকা চাইলেও চাউল না পাওয়ায় ভুক্তভোগী সঞ্চয়ের টাকা জমা দেবে না বলে চলে আসেন।

এ ঘটনা বিবরণ জানিয়ে এ বছরের প্রথম দিকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ,ভাঙ্গুড়া বরাবরে লিখিত অভিযোগ করে প্রতিকার ও উক্ত ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবী করেন সুফল ভোগী শাকিলা খাতুন। অভিযোগের মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা হাসনাৎ জাহানকে তদন্তের ভার দেওয়া হয়। আবেদনের প্রায় ৩মাস পর তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেন তার উর্ধতন কর্মকর্তা ইউএনও বরাবর। সেখানে ঘটনার কোনো সতত্যা পান নি মর্মে উল্লেখ করেন বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে ভিজিডি কর্মসূচীর সুফলভোগীর স্বামী আলম জানান, আজ অবধি ওই তিন বস্তা চাউল চেয়ারম্যান বা ইউপি সদস্য স্বপন কেহই তাদের দেন নি। বা কোন ধরণের ব্যবস্থাও নেন নি।

এ বিষয়ে মন্ডতোষ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান আফসার আলী বলেন, ৫ হাজার টাকা দেওয়ার কথা স্বীকার করেছিল কার্ড ধারী শাকিলা ও তার পরিবার। কিন্তু তা আমাকে টাকা দেন নি। তাই আমার ইউপি সদস্য আরিফুল ইসলাম স্বপন তিন মাসের তিন বস্তা চাউল বিক্রি করে টাকা আদায় করেছে ।

উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা হাসনাৎ জাহান বলেন, টিপসই নিয়ে ভিজিডি কার্ডধারীকে চাউল না দিয়ে ফিরিয়ে দেওয়ার অভিযোগের তদন্তের বিষয়ে তিনি সাংবাদিকেদের নিকট মুখ খুলতে অপারগতা প্রকাশ করেন।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ নাহিদ হাসান খাঁন বলেন,‘ঘটনার কোনো সত্যতা পাওয়া যায় নি।

102


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর