মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১, ০৮:৪২ অপরাহ্ন

মির্জাপুরের আজগানাতে আটিয়া বন অধ্যাদেশ বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন

মাসুদ পারভেজ, স্টাফ রিপোর্টার :
  • সময় কাল : সোমবার, ৪ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৪০২ বার পড়া হয়েছে

 

আটিয়া বন অধ্যাদেশ বাতিলের দাবিতে টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার আজগানা ইউনিয়নের কালিয়াকৈর-সখিপুর রাস্তার খাটিয়ার হাট বাজারে সহস্রাধিক নারী-পুরুষ সমাবেশে এক মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে।

আজ ৪ ই জানুয়ারী ২০২১ ইং তারিখ সকাল থেকে মির্জাপুর উপজেলার কালিয়াকৈর-সখিপুর রোডে খাটিয়ার হাট বাজারে এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়। মানববন্ধন কর্মসূচিতে সকল মানুষের দাবি বর্তমান সরকারের কাছে, তাদের বাপ-দাদার ভিটে মাটি থেকে যেন তাদের সরিয়ে দেওয়া না হয়। জনসাধারণ আরও বলেন, যে দেশ এতো রোহিঙ্গার বসবাস সে দেশে আমরা দেশের নাগরিক হয়েও অবহেলিত কেন। তথ্য সূত্রে জানা যায়, ১৯৬২ সালে তৎকালিন জমিদারের কাছ থেকে পত্তনের সূত্র অনুযায়ী রেকর্ড পায়। তবে ১৯৮২ সালে এরশাদ সরকার ক্ষমতায় এসে আমাদের রেকর্ডকৃত জমিকে অন্যায় ভাবে বনবিভাগের নামে লেখে দেয়। সে সূত্র ধরে আমাদের মির্জাপুর উপজেলায় বাড়িঘর উচ্ছেদ অভিযান পরিচালিত হচ্ছে যা আমাদের জন্য খুবই দুঃজনক। যে দেশে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ঘরহীন মানুষকে বাসস্থানের ব্যবস্থা করে দিচ্ছে সেই দেশ কেন শতবছরের বাপ-দাদার ভিটে ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে। সুতরাং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমাদের আবেদন আমাদের এই উচ্ছেদ অভিযান বন্ধ করে ৬২ সালের রেকর্ড টোটালি বহাল রেখে আমাদের সম্পত্তি আমাদেরকে ফিরিয়ে দিন।

মানববন্ধনে মির্জাপুর উপজেলার সাধারণ জনতার পাশাপাশি উপজেলা আওয়ামী লীগ, আজগানা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ,কৃষক লীগের নেতাকর্মীরাও অংশগ্রহণ করেন।

এলাকাবাসী ও সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, টাঙ্গাইলসহ আশপাশের কয়েকটি এলাকার জমি ১৯২০ সালে সেটেলমেন্ট রেকর্ডভুক্ত হওয়ার পর তৎকালীন সরকার ১৯২৭-২৮ সালে গেজেট মূলে মির্জাপুরসহ আশপাশের কয়েকটি অঞ্চলের জায়গা বন বিভাগের কাছে ন্যস্ত করে। সরকার ১৯৮২ সালে আটিয়া অধ্যাদেশ জারি করে। বসতবাড়িসহ সাধারণ মানুষের ১৯৬২ সালের রেকর্ডভুক্ত জমিও এই অধ্যাদেশের আওতায় আনা হয়। এই অধ্যাদেশের আওতায় বর্তমানে প্রায় ৪৫ হাজার একর জমি রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে আরো জানা যায়, ঘরবাড়ি করতেও বাঁশতৈল রেন্জ অফিস ও হাটুভাঙ্গা বিট অফিসে দালালের মাধ্যমে দিতে হয় মোটা অঙ্কের টাকা। টাকা না দিলে মামলার ভয়ভীতি দেখিয়ে টাকা আদায় করা হয় বলে জানান শেফালী নামের এক ভুক্তভোগী ।

মানববন্ধনের সঞ্চালনা করেন আব্দুল করিম সরকার ও বাবুল সরকার।

এ সময় আব্দুর রাজ্জাক মল্লিকের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন আজগানা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম সিকদার,মির্জাপুর উপজেলা ইটভাটা মালিক সমিতির সভাপতি, আজগানা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ সভাপতি ও চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আব্দুল কাদের (কাদের সিকদার),বীর মুক্তিযোদ্ধা শমশের আলী মাস্টার,উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য বাবু সুনীল সারথি বর্মন,খলিলুর রহমান ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ ফাইজুল ইসলাম তারা, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম মল্লিক, সাবেক সাধারণ সম্পাদক এম এ কদ্দুছ,১ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি আমিন উদ্দিন,২ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি খলিল সিকদার সহ বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ।

Spread the love
  •  
  •  
  •  

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরও খবর
themesba-lates1749691102