সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৩৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কোনাবাড়ীতে গাঁজাসহ ২ মাদক ব্যবসায়ী আটক ঠাকুরগাঁওয়ে দুইদিন ব্যাপী শিশু সাংবাদিকদের কর্মশালা শুরু লালমনিরহাট পাটগ্রামে দুই রোহিঙ্গা আটক গাজীপুরে নিখোঁজের ৫ দিন পর যুবকের লাশ উদ্ধার সন্ত্রাসীর চুরিকাঘাতে সাংবাদিক অশোক দাস গুরুতর আহত কাজিপুরের চরাঞ্চলে মাদক সন্ত্রাস বিরোধী মিছিল ও সমাবেশ করেছে স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীরা ট্রেনের ইঞ্জিন বিকল ৩ ঘন্টা পর উল্লাপাড়ায় ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক রূপগঞ্জে সেজান জুস কারখানায় অগ্নিকান্ডে নিহত ও আহতদের ক্ষতিপূরণের দাবিতে স্কপ এর শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি প্রদান অনুশীলনে ফিরেছেন ড্যাসিং ওপেনার তামিম ইকবাল জয়পুরহাট র‍্যাব ৫ এর হাতে বগুড়াতে ১১ কেজি গাঁজাসহ ৫ জন গ্রেফতার

মির্জাপুরে মসজিদের আনুমানিক ২০ লক্ষ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

মাসুদ পারভেজ, স্টাফ রিপোর্টার :
  • সময় কাল : বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই, ২০২১
  • ১০০৫ বার পড়া হয়েছে

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরের ভাওড়া ইউনিয়নের সরকারপাড়া জামে মসজিদের আনুমানিক ২০ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ, দূর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ বাদল মিয়ার বিরুদ্ধে। তিনি মির্জাপুর উপজেলার ভাওড়া ইউনিয়নের মৃত. আব্দুস ছামাদ মিয়া ওরফে চাঁন মিয়ার ছেলে। এ নিয়ে গ্রামে উত্তেজনা বিরাজ করতেছে। যে কোনমূহুর্তে ঘটতে পারে সংঘর্ষ। এ বিষয়ে মির্জাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও মির্জাপর থানায় অফিসার ইনচার্জ বরাবর ২৪/৭/২০২১ ইং তারিখে অভিযোগ দায়ের করেছেন ভাওড়া ইউনিয়নের সরকারপাড়া জামে মসজিদের বর্তমান কমিটির সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক। সাবেক কমিটি একনাগারে দীর্ঘ ১৩-১৪ বছর মসজিদ কমিটির দায়িত্ব পালন কালে এ ঘটনা ঘটেছে। ভাওড়া ইউনিয়নের মুসুল্লিগন মসজিদের টাকা উদ্ধারের জন্য করজোর দাবী জানিয়েছেন উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের নিকট।

অভিযোগের বিবরনে উল্লেখ করেন, বিবাদী সাবেক মসজিদ কমিটির সভাপতি মৃত. দবির উদ্দিনের ছেলে মো. আনোয়ার হোসেন ও সেক্রেটারী আব্দুল কাদের মিয়ার সহযোগিতায় কোষাদক্ষ ভাওড়া ইউনিয়নের মৃত. আব্দুস ছামাদ মিয়া ওরফে চাঁন মিয়ার ছেলে মো. বাদল মিয়া বিভিন্ন সময়ে টাকা আত্মসাতের জন্য বিভিন্ন কায়দায় প্রতারণামূলকভাবে আমাদের সরকারপাড়া জামে মসজিদের নামে বাৎসরিক ধানের টাকা, সাপ্তাহিক মুসুল্লিদের দানের উত্তোলনের টাকা ও বাৎসরিক ২ টি ওয়াজ মাহফিলের টাকাসহ আনুমানিক ২০,০০০০০/-( বিশ লক্ষ) টাকা আত্মসাৎ করেছে। এই টাকার বিষয়ে গ্রামের মুসুল্লিদের নিয়ে একটি বিচার মজলিশ বসা হয় এবং টাকা আত্মসাতের প্রমান হয়। এমনকি মসজিদের হিসাবের খাতার মধ্যেও হিসাবের দুর্নীতির বিভিন্ন প্রমান রয়েছে। মসজিদের হিসাব নিকাস সাবেক সেক্রেটারী আব্দুল কাদেরের পরিবর্তে সাবেক কোষাদক্ষ বাদল মিয়া দায়িত্ব পালন করত। এই টাকা চাইতে গেলে বিবাদী মো. বাদল মিয়া কোন টাকা না দিয়ে গত ২১/৭/২০২১ ইং তারিখে তার ছেলেসহ ৫/৭ জন সন্ত্রাসী শ্রেনির লাঠিয়াল দাঙ্গাবাজ দুষ্ট প্রকৃতির লোকজনদের সঙ্গে নিয়ে মেরে ফেলাসহ বিভিন্ন হুমকী প্রদর্শন করতেছে। এ নিয়ে আমাদের গ্রামে বড় ধরনের সংঘর্ষ হওয়ার উত্তেজনা বিরাজ করতেছে। যেকোন সময় বিবাদী পক্ষ আমাদের বড় ধরনের ক্ষতি সাধন করতে পারে। এ বিষয়ে ভাওড়া এলাকার সেনাবাহীনী (অব:) সার্জেন মোকতার হোসেন লেবু, সরকারপাড়া জামে মসজিদের কোষাদক্ষ সাহাদৎ হোসেন, মাহফুজুল হক পিন্টু করিম মিয়া,মির্জাপুর এস কে পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক লিয়াকত আলী খাঁন, আল মামুন খাঁন, রিপন মিয়াসহ ২৫-৩০ জন লোকের সাথে আলাপে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন।

বিবাদী সাবেক মসজিদ কমিটির সভাপতি মো. আনোয়ার হোসেন ও কোষাদক্ষ মো. বাদল মিয়া সাথে মোবাইলে কথা বললে বিষয়টি অস্বিকার করে।

অপর দিকে মসজিদের দান বাক্স ভেঙ্গে ও চেক জালিয়াতির মাধ্যমে ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলন করে বর্তমান কমিটি প্রায় ৪৫ লাখ টাকা আত্নসাত করেছে বলে সাবেক কমিটি অর্থাৎ বিবাদী অবসর প্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা বাদী হয়ে মির্জাপুর থানায় পরবর্তীতে ২৬/৭/২০২১ ইং তারিখে একটি পাল্টা অভিযোগ দিয়েছেন।
এদিকে মসজিদ কমিটি ও অর্থ আত্নসাত নিয়ে দুই পক্ষ থানায় পাল্টাপাল্টি অভিযোগ করায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।
সরকারপাড়া জামে মসজিদের সাবেক সাধারন সম্পাদক মো. আব্দুল কাদের মিয়া বলেন মসজিদের সেক্রেটারী আমি ছিলাম আমার চাকুরীর কাজে ব্যাস্ত থাকায় মসজিদের হিসাব নিকাসের সমস্ত দায়িত্ব বাদল মিয়া পালন করত। দুইটি অভিযোগের বিষয়ে তিনি বলেন বর্তমান সভাপতি /সাধারন সম্পাদক থানায় অভিযোগ করায় দ্বিতীয় পক্ষও থানায় অভিযোগ করেছে। তালা ভেঙ্গে টাকা নেওয়ার বিষয়টি আমি জানিনা। বিগত দির্ঘ সময় যাবৎ আমাদের ভাওড়া এলাকায় এই দুই পক্ষের সাথে পাল্টাপাল্পি রেশারেশি হয়ে আসছে। শেষ বয়সে মানসম্মান নিয়ে চলাচল কষ্টকর হয়ে পড়েছে।

এ বিষয়ে মির্জাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. হাফিজুর রহমান বলেন, ভাওড়া ইউনিয়নের সরকারপাড়া জামে মসজিদের টাকা আত্মসাৎ এর অভিযোগ পেয়েছি। অতি শীঘ্রই তদন্ত সাপেক্ষে এর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এ বিষয়ে মির্জপুর থানার এস আই মো.আরিফ তালুকদার বলেন, সাবেক কমিটির হিসেবে কিছু গরমিল আছে। টাকা আত্মসাতের প্রমান পাওয় গেছে। অপরদিকে বিবাদী পক্ষও একটি একটি অভিযোগ দায়ের করেছে তদন্ত চলমান আছে। সম্পূর্ন ভাবে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত প্রযোজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Spread the love
  •  
  •  
  •  

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরও খবর
এই নিউজ পোর্টাল এর কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি ও দণ্ডনীয় অপরাধ ।  About Us | Contact Us | Terms & Conditions | Privacy Policy
Design & Developed by Freelancer Zone
themesba-lates1749691102