বুধবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:১৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
মির্জাপুরে প্রধানমন্ত্রীর ৭৫ তম জন্মদিন পালন বড়াইগ্রাম পৌরসভায় প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে এতিমদের মাঝে খাবার বিতরণ ভালুকায় প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে ছাত্রলীগের উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ ও দোয়া মাহফিল রাজাপুরে শেখ হাসিনা’র ৭৫ তম জন্মদিন পালন জয়পুরহাটে ছাত্রীকে অপহরণ ও ধর্ষণ মামলায় এক যুবকের ৭২ বছর কারাদণ্ড শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে এতিম শিশুদের নিয়ে কেক কর্তন ভালুকায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিন উদযাপন প্রধানমন্ত্রী’র জন্মদিন উপলক্ষে শিবরাম স্কুল এন্ড কলেজে স্মারকবৃক্ষ রোপণ অনুষ্ঠিত ঠাকুরগাঁওয়ে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে শিক্ষার্থীদের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ বর্নাড্য আয়োজনে রূপগঞ্জে শেখ হাসিনার জন্মদিন পালন

সন্তানের দাবিসহ সেনা সদস্যের বাড়িতে অনশনরত সেই নারী হাসপাতালে ভর্তি

মাসুদ পারভেজ, স্টাফ রিপোর্টার :
  • সময় কাল : বৃহস্পতিবার, ১৯ আগস্ট, ২০২১
  • ৪১১ বার পড়া হয়েছে

টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার পাকুল্যা এলাকার সাটিয়াচড়া গ্রামে এক সেনা সদস্যের বাড়িতে সন্তান ও বিয়ের দাবিসহ এক নারী আজ ৪ দিন ধরে অনশন করছে।সেনা সদস্য ওই এলাকার মো: মিজানুর রহমানের ছেলে আসাদুজ্জামান আসাদ (২৬)।

অনশনকারী ওই নারীর বাড়ি নিলফামারী জেলা ও উপজেলার ইটাখোলা চৌধুরী পাড়া এলাকার মো: সেকেন্দার রহমানের মেয়ে আয়শা সিদ্দিকা আয়শা (২৮)।অনশনকারী ওই নারী ১৬ আগস্ট থেকে ওই বাড়িতে অনশন করছেন।অনশনকালে ওই নারী গতকাল বুধবার রাতে হঠাৎ করে প্রচন্ড অসুস্থ হয়ে পরে। পরে তাকে উক্ত পরিবারের লোকজন মির্জাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করেন। সরেজমিনে গেলে দেখা যায়, ওই নারী মোটামুটি সুস্থ আছেন।

অনশনরত ওই নারী হাসপাতালে গেলে বলেন, সেনা সদস্য আসাদের সাথে আমার ৬ বছর আগে ফেসবুকে পরিচয়। তারপর আসাদ আমাকে বিভিন্নভাবে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল।আমার সংসার আছে ওকে বললেও আমাকে বিয়ে করবে এ কথা বলত।পরে দুজনের মধ্যেই ভাল সম্পর্ক তৈরী হয়ে যায়। এক পর্যায়ে বাধা দিলেও ও আমার শ্বশুর বাড়িতেই আসে। আমাদের সাথে শারীরিক সম্পর্ক গড়ে ওঠে। পরে ও বিয়ে করতে চাইলে আমি রাজি হয়ে যায়। পরে ও আমাকে টাঙ্গাইল আসতে বলে কোর্টে বিয়ে করবে বলে।

আমি আসি।পরে আসাদ আমাকে এক বাসায় নিয়ে গেলে ওখানে একটি কাগজে স্বাক্ষর করতে বলে। আমি স্বাক্ষর করে দেই। ও আমার কাছে কোন ডকুমেন্টস দেই নি। পরে আমি ও আসাদ দুজনে সিদ্ধান্ত নেই বাচ্চা নেয়ার।এখন আমাদের প্রায় দুই বছরের এক ছেলে সন্তান আছে। বাচ্চা পেটে থাকা অবস্থায় আসাদ মিশনে যায় কুয়েত। এখনো কুয়েত আছে। অনশনরত ওই নারী হাসপাতালে গেলে আরো বলেন, লিখিত ডকুমেন্টস আসাদের কাছে, আমার কাছে ও দেই নি। তবে আমার সাথে ও মেসেজে, ইমুতে, ফেসবুক আইডি থেকে যে কথাগুলো বলেছে তা আমার কাছে।

আমার সাথে ও ভিডিও চিত্রেও কথা বলেছে যার প্রমাণ আমার কাছে আছে। আসাদের বাড়ি থেকে আমার আগের স্বামীর বাড়িতে গিয়ে সব বলে দেয়ার পর আমার ওই সংসার নষ্ট হয়েছে। আমার বাবার পরিবার থেকে সম্পর্ক নষ্ট। আমি কি করব বুঝতে পারছি না।আসাদ যদি আমাকে মেনে না নেয় তাহলে এই সন্তান নিয়ে আমি কোথায় যাব?

আমার আত্মহত্যা ছাড়া কোন উপায় থাকবে না।তিনি আরো বলেন,ক্ষমতার ভয়ভীতি দেখিয়ে আমাকে চলে যেতে বলছে। আমাকে ওরা বিভিন্ন ভাবে মানসিক নির্যাতন করছে।হাসপাতালে ভর্তি হবার পর আসাদের পরিবারের সবাই আমাকে দেখতে আসছিল। তারা আমাকে বলে, তুমি চলে যাও, আমাদের ছেলের চাকরি বাঁচাও। আমি বলেছি যে, আমি মরে গেলেও আসাদকে ছেড়ে কোথাও যাব না। তাকে ছেড়ে আমি কোথায় যাব?

পরিবার সূত্রে জানা যায় ,ওই নারী অসুস্থ হয়ে পড়লে স্থানীয় হাসপাতালে রাতেই ভর্তি করা হয়। আমরা তাকে দেখতে গিয়েছিলাম।এখন সে মোটামুটি সুস্থ আছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কর্তৃপক্ষ জানান, সে এখন আগের চেয়ে সুস্থ আছে। আরো সুস্থ হলে আমরা তাকে ছেড়ে দেব।

Spread the love
  •  
  •  
  •  

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরও খবর
এই নিউজ পোর্টাল এর কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি ও দণ্ডনীয় অপরাধ ।  About Us | Contact Us | Terms & Conditions | Privacy Policy
Design & Developed by Freelancer Zone
themesba-lates1749691102