বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ০৪:২৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
সিরাজগঞ্জ পুলিশ সুপার পদোন্নতি প্রাপ্ত হওয়ায় বদলিজনিত বিদায় সংবর্ধনা দিলেন পৌরসভা জাতীয় শোক দিবসে কাজিপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের আলোচনা সভা সিরাজগঞ্জের সলঙ্গায় জাতীয় শোক দিবস পালিত বেতাগীতে ইউপি সদস্য শামীম খানের হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন ঝালকাঠিতে কবি লিটন তালুকদারের কাব্য গ্রন্থ “সফেদ ক্যানভাসে রক্তের ছোপ” এর মোড়ক উন্মোচন লালমনিরহাটে অপরাধী’র পক্ষ নিল প্রধান শিক্ষক! লালমনিরহাটে সাংবাদিকদের হামলার প্রতিবাদে ঢাকায় মানববন্ধন! শোক দিবস উপলক্ষে শিয়ালকোল ইউপির চেয়ারম্যান শেখ সেলিম রেজা’র হুইল চেয়ার বিতরণ কাশিমপুরে ককটেল ফাটিয়ে রকেট এজেন্টের টাকা ছিনতাই  মূল্যবান খনিজ আহরণে নজর পেট্রোবাংলার

সিরাজগঞ্জ হাসপাতালের মর্গে থাকা বৃদ্ধের মরদেহ অবশেষে তিনদিন পর দাফন, মরার আগে বলে গেছেন নির্যাতনের বর্ণনা

কলমের বার্তা ডেস্ক :
  • সময় কাল : সোমবার, ১১ মে, ২০২০
  • ৩৪১ বার পড়া হয়েছে।

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি :

২৫০ শয্যা বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পরে থাকা আলহাজ্ব রিয়াজুল হক চৌধুরী ওরফে মিজানুর রহমান (৬০) নামে এক বৃদ্ধের মরদেহ তিনদিন পরে থাকার পর অবশেষে পুলিশ দাফনের ব্যবস্থা করেছে। গত ৭ মে বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ৮ দিকে তিনি ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। এর আগে শহরের মাহমুদপুর এলাকার আলাামিন নামে এক যুবক সিরাজগঞ্জ বাজার রেলষ্টেশনে তাকে মুমূর্ষু অবস্থায় পরে থাকতে দেখে স্থানীয়দের সহযোগীতায় ৫ মে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করেন। তার মৃত্যুর পরে পুলিশ বিভিন্ন ভাবে আত্মীয় স্বজনদের খোঁজ নিতে থাকেন, কিন্ত শেষ পর্যন্ত তা না পাওয়ায় তিনদিন পরে পুলিশ মরদেহ হাসপাতাল থেকে নিয়ে মাঞ্জুমান মফিদুলের মাধ্যমে দাফনের ব্যবস্থা করে।

এদিকে সিরাজগঞ্জ ২৫০শয্যা বিশিষ্ট বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালের সুপার ডাঃ শাহজাহান আলী বলেন, বৃদ্ধ মারা যাওয়ার পরে তার মরদেহ তিন দিন মর্গে ছিলো। তার কোন আত্মীয়-স্বজন না পাওয়ায় পুলিশ নিয়ে গিয়ে দাফনের ব্যবস্থা করেছে।

সিরাজগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাফিজুর রহমান বলেন, ৭ মে বৃহস্পতিবার ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসাধীন অবস্থায় আনুমানিক ৬০ বছর বয়স্ক ওই বৃদ্ধ মারা যান। মৃত ব্যক্তির সঠিক পরিচয় ও কোন আত্মীয় স্বজন বা নিকস্থ পরিজন পাওয়া যায়নি। যার কারনে ১০ মে আঞ্জুমান মফিদুলের মাধ্যমে দাফনের ব্যবস্থা করা হয়।
এদিকে মৃত ব্যক্তি চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় তার শারীরিক অবস্থা তেমন ভাল ছিলো না। এর মধ্যে তার বক্তব্য রেকর্ড করা হয়। তার এই বক্তব্য সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে। একজন সংবাদকর্মী তার সেই বক্তব্য রেকর্ড করেছেন। সেখানে তিনি তার নাম বলেছেন রিয়াজুল হক চৌধুরী, পিতা-মৃত জিয়াউল হক চৌধুরী। স্ত্রীর নাম শিরিন বেগম। বাড়ী সিলেট জেলার বিশ্বনাথ উপজেলার উত্তর খাজাঞ্চি পাড়া। তার চার সন্তান রয়েছে। তারা হলেন সুবল চৌধুরী, ফারুক চৌধুরী, নিজার চৌধুরী এবং নিজাম চৌধুরী। মেয়ে জেসমিন আরার স্বামী ফিরোজ সরকার পেশায় ইঞ্জিনিয়ার। তারা বর্তমানে সুইজারল্যান্ড থাকেন। তাকে শত্রæতা বসত বেদম মারপিট করে সিরাজগঞ্জ জেলার এনায়েতপুর থানার খুকনীর কাপড় ব্যবসায়ী ছাত্তার হাজী ও তার লোকজন।
রিয়াজুল হক চৌধুরী আরও জানিয়েছেন, তিনি কাপড়ের ব্যবসা করেন। এনায়েতপুর থানার খুকনীর সাত্তার হাজী, সালাম হাজী ও মজিবর হাজী এবং বেলকুচি, শাহজাদপুরের বিভিন্ন কাপড় ব্যবসায়ীর সাথে তিনি দীর্ঘদিন হয় ব্যবসা করছেন। এর মধ্যে খুকনীর সাত্তার হাজী তার ব্যবসার আগে পার্টনার ছিলো। এখন পার্টনার নেই তবে তাকে কমিশন দিতাম। এই সাত্তার হাজী তাকে লোকজন দিয়ে বেদম মারপিট করে বলে তিনি জানিয়েছেন।
এ বিষয়ে সাত্তার হাজীর ছেলে হাজী লালমিয়া বলেন, রিয়াজুল হক চৌধুরী যে সাত্তার হাজীর কথা বলেছেন তার বাবা সেই সাত্তার হাজী নাও হতে পারেন। তিনি আরও দাবী করেন তিনি তার বাবা ও অন্যান্য ভাই রিয়াজুল হক চৌধুরীকে চিনেন না। তবে তিনি বলেন, তার বাবা সাত্তার হাজী চল্লিশ বছর আগে সিলেটে ব্যবসা করতেন এখন করেন না।

Spread the love

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও খবর
এই নিউজ পোর্টাল এর কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি ও দণ্ডনীয় অপরাধ ।  About Us | Contact Us | Terms & Conditions | Privacy Policy
Design & Developed by RJ Ranzit
themesba-lates1749691102