শিরোনামঃ
আশা জাগাচ্ছে বায়ুবিদ্যুৎ ডিসেম্বরে ঘুরবে ট্রেনের চাকা মূল্যস্ফীতি হ্রাসে ব্যাংক থেকে ঋণ কমাতে চায় সরকার বদলে যাবে হাওরের কৃষি বাংলাদেশে নতুন জলবায়ু স্মার্ট প্রাণিসম্পদ প্রকল্প চালু যুক্তরাষ্ট্রের ‘তথ্য দেওয়ার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকে ৩ জন মুখপাত্র নিয়োগ দেওয়া হয়েছে’ অস্বস্তি কাটিয়ে যুক্তরাষ্ট্র-বাংলাদেশ সম্পর্কে নতুন মোড় এমপিদের শুল্কমুক্ত গাড়ি আমদানি সুবিধা উঠে যাচ্ছে ভূমি অধিগ্রহণ জটিলতা দূর ৫০০ একর খাসজমি বরাদ্দ স্বাধীনতাবিরোধীদের পদচিহ্নও থাকবে না: রাষ্ট্রপতি আজ জাতীয় এসএমই পণ্য মেলা উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী দশতলা বিল্ডিং এর ছাদ থেকে লাফ দিয়ে নারী পোশাক শ্রমিকের মৃত্যু বাগবাটি রাজিবপুর অটিস্টিক ও বুদ্ধি প্রতিবন্ধী স্কুলে হুইল চেয়ার বিতরণ সিরাজগঞ্জ পৌরকর্মচারী ইউনিয়নের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত  কাজিপুর খাদ্য গুদামে অভ্যন্তরীণ বোরো -ধান চাউল সংগ্রহ এর উদ্বোধন আদিতমারীতে ধান-চাল ক্রয়ের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঠাকুরগাঁওয়ে শিশু নিবির হত্যা মামলায় গ্রেফতার আরেক শিশু বেনাপোল সীমান্তের চোরা পথে ভারতে যাবার সময় মিয়ানমার নাগরিকসহ আটক-৪ বিয়েতে রাজি না হওয়ায় আত্নহত্যা, প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে হত্যা মামলা সিরাজগঞ্জে সাংবিধানিক ও আইনগত অধিকার বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

পদ্মা সেতুর প্রথম ভিত্তিপ্রস্তরও শেখ হাসিনার হাতে

কলমের বার্তা / ২৫০ বার পড়া হয়েছে।
সময় কাল : শনিবার, ১১ জুন, ২০২২

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ২০০১ সালে প্রথমবার পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন সরকারি নথিপত্রেই লিপিবদ্ধ আছে। সে সময় এ সেতুতে অর্থায়নের জন্য জাপানি সংস্থার সঙ্গে ইতিবাচক আলোচনার ভিত্তিতে কোন স্থানে সেতু হবে তার সমীক্ষাও হয়েছিল। ২০০১ সালে ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের কাজের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অন্তত দু’জন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ফিল্ম আর্কাইভের তথ্য অনুযায়ী, ২০০১ সালের ৪ জুলাই (বাংলা বর্ষপঞ্জি অনুযায়ী ১৪০৮ বঙ্গাব্দের ২০ আষাঢ়) প্রথমবারের মতো মুন্সীগঞ্জের মাওয়া প্রান্তে পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, প্রয়াত আব্দুর রাজ্জাক, তৎকালীন যোগাযোগমন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু প্রমুখ।  ভিত স্থাপন শেষে সেদিন মাওয়া প্রান্তে এক সুধী সমাবেশেও বক্তব্য রাখেন শেখ হাসিনা।

এ ছাড়া পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর উপলক্ষে সেদিন যোগাযোগ মন্ত্রণালয় যে স্মারকগ্রন্থটি প্রকাশ করেছে, সেখানেও ছাপা হয়েছে ওই সময়ের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একটি বাণী। যার কপি আছে নিউজবাংলার হাতে।

সেদিন ঘটনাস্থলে উপস্থিত তৎকালীন খাদ্য মন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেন, ‘তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতু করার জন্য জাপানিদের সঙ্গে কয়েক দফা বৈঠক করেন। তারা অর্থায়নের বিষয়ে ইতিবাচক সাড়া দিলে তিনি সমীক্ষাও শুরু করেন এবং স্থান নির্বাচন করেন। প্রধানমন্ত্রী পরবর্তীতে বিষয়টি নিয়ে কেবিনেটে আলোচনা করেন। সে আলোচনা মোতাবেক তিনি ২০০১ সালে পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। সেখানে মন্ত্রিসভার সদস্য, স্থানীয় নেতাকর্মী এবং দাতা সংস্থার লোকজনও উপস্থিত ছিলেন।’

১৯৯৬-২০০১ মেয়াদে প্রথমবার প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন শেখ হাসিনা। সে মেয়াদে তার একান্ত ব্যক্তিগত সহকারি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন তৎকালীন ছাত্রনেতা এবং বর্তমানে আওয়ামী লীগের অন্যতম যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম। তিনি বলেন, ‘১৯৯৮ সালে ফরিদপুরের একটি জনসভায় প্রথমবারের মতো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা নদীর উপর সেতু নির্মাণে কথা বলেন। এর ধারাবাহিকতায় পরবর্তীতে জাপানিদের সঙ্গে অর্থায়নের বিষয়ে ইতিবাচক আলোচনা সাপেক্ষে সমীক্ষা হয়।’

বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ২০০১ সালে পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন সরকারি নথিপত্রে লিপিবদ্ধ আছে। সে সময় পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের জন্য একটি সরকারি চিঠি জারি করা হয়। তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত কর্মকর্তা (একান্ত ব্যক্তিগত সহকারি-২) হিসেবে আমি সেই চিঠি নথিবদ্ধ করি।’

‘বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া প্রথম পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছিলেন’ মর্মে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের দাবিকে শতাব্দীর শ্রেষ্ঠ মিথ্যাচার হিসেবে অভিহিত করেন বাহাউদ্দিন নাছিম। তিনি বলেন, ‘ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছিলেন শেখ হাসিনা, আর পরবর্তী বিএনপি-জামাত সরকার স্থান নির্বাচনের নামে কালক্ষেপন করে মেয়াদ পার করেছে।’ সম্প্রতি বিএনপি মহাসচিব এক অনুষ্ঠানে খালেদা জিয়া প্রথম পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছিলেন বলে দাবি করেন।

কিন্তু সরকারি নথিপত্র, ফিল্ম আর্কাইভ এবং যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের স্মারক গ্রন্থ থেকে জানা যায়, শেখ হাসিনাই ২০০১ সালের ৪ জুলাই মুন্সীগঞ্জের মাওয়া প্রান্তে প্রথমবার পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। এ প্রকল্পে জাপানিদের অর্থায়ন করার কথা ছিল। কিন্তু তার কয়েকদিন পরই সরকারের মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ায় এ কাজ আর এগোয়নি।

পরবর্তীতে ২০০৮-এর নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নির্বাচনি ইশতেহারে পদ্মা সেতু নির্মাণের অঙ্গীকার করা হয়। প্রধানমন্ত্রীর সহকারি প্রেস সচিব আমরাফ সিদ্দিকী বিটুর একটি কলাম থেকে জানা যায়, ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতা গ্রহণের পরই ফেব্রুয়ারি মাসে পদ্মা সেতুর জন্য ডিজাইন কনসালট্যান্ট নিয়োগ করে। কনসালট্যান্ট সেপ্টেম্বর ২০১০-এ প্রাথমিক ডিজাইন সম্পন্ন করে এবং সেতু বিভাগ প্রিকোয়ালিফিকেশন দরপত্র আহবান করে। ২০১১ সালে সরকার বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে ঋণ চুক্তি করে।

কিন্তু কথিত দুর্নীতির অভিযোগে অর্থায়ন থেকে পিছিয়ে যায় বিশ্বব্যাংক। এ পরিস্থিতিতে পদ্মা সেতুতে অর্থায়নের আবেদন বিশ্বব্যাংক থেকে ফিরিয়ে নেয় সরকার। যদিও পরবর্তীতে দুর্নীতির অভিযোগ কানাডার আদালতে মিথ্যা প্রমাণিত হয়।

নানা অভিযোগ ষড়যন্ত্র চাপ উপেক্ষা করে ২০১২-এর ফেব্রুয়ারি মাসেই প্রধানমন্ত্রী দৃঢ়তার সঙ্গে ঘোষণা করেন, প্রয়োজনে নিজস্ব অর্থায়নেই পদ্মা সেতু হবে। ২০১২ সালের ৪ জুলাই সংসদে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণের ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ৮ জুলাই আবারও সংসদে দাঁড়িয়ে ‘নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ করা হবে’ বলে জানিয়ে বিস্তারিত ব্যাখ্যাসহ জাতির সামনে বক্তব্য তুলে ধরেন তিনি।

২০১৩ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি সংসদে তৎকালীন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত জানান, নিজস্ব অর্থায়নেই হবে পদ্মা সেতু। পরের বাজেটেই সেতুর জন্য অর্থ বরাদ্দ করার কথা বলেন তিনি। ২০১৫-এর ১২ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতুর মূল অবকাঠামো নির্মাণকাজের উদ্বোধন করেন।

ভায়াডাক্ট ছাড়া ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এই সেতু নির্মাণ করে বিশ্বকে অবাক করে দিয়ে গৌরবের মালিক বাংলাদেশ। এর মধ্যেই সেতুটি উদ্বোধনের দিনক্ষণ চূড়ান্ত করেছে সরকার। জমকালো আয়োজনের মধ্য দিয়ে ২৫ জুন সেতুটি উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার সংগ্রামের ফসল পদ্মা সেতুর নাম বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার নামানুসারে করার দাবি উঠলেও তিনি তা গ্রহণ করেননি। বরং তার সিদ্ধান্তে সেতুর নাম ‘পদ্মা সেতু’ উল্লেখ করে গেজেট প্রকাশ হয়েছে।

107


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর