মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ০৬:৫৫ অপরাহ্ন

‘কম মূল্যে সার পেতে যাচ্ছে বাংলাদেশ’

কলমের বার্তা ডেস্ক :
  • সময় কাল : বৃহস্পতিবার, ১৬ জুন, ২০২২
  • ১৪ বার পড়া হয়েছে।

আন্তর্জাতিক বাজারে দাম কমায় আগের চেয়ে বেশ কম মূল্যে সার কেনা যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব জিল্লুর রহমান চৌধুরী। বুধবার সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত ও অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে শেষে তিনি বলেন, “মোটের ওপর বলতে গেলে সব ক্ষেত্রেই দাম কমেছে, আমরা সাশ্রয়ী মূল্যে পেয়েছি। রাষ্ট্রীয় চুক্তি থাকার কারণে আরও সুবিধা পেয়েছি।

“প্রতি টন ১৩০০ ডলার হয়ে গিয়েছিল। সেটা এখন ৮০০ থেকে ৮৫০ ডলারে পাওয়া গেছে। চুক্তির কারণে কমে পাওয়া গেছে।” এদিন বৈঠকে কানাডা, কাতার, মরক্কো ও সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে ইউরিয়া, ডিএপি ও টিএসপি সারের একাধিক লট কেনার প্রস্তাবে অনুমোদন দেওয়া হয়।

বৈঠকে বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ করপোরেশনের (বিসিআইসি) প্রস্তাবে ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের জন্য ইউরিয়া সার কিনতে কাতারের সঙ্গে জিটুজি চুক্তি নবায়ন করার প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়। এর ফলে কাতারের মুনতাজাত কোম্পানি থেকে বিভিন্ন লটে ৬ লাখ ৩০ হাজার টন সার আসবে।

ক্রয় কমিটির বৈঠকে বিসিআইসির আরেক প্রস্তাবে সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে ৩০ হাজার টন বাল্ক গ্র্যানুলার (অপশনাল) ইউরিয়া সার ১৭৯ কোটি ২১ লাখ ১১ হাজার ২০০ টাকায় আমদানির অনুমোদন দেওয়া হয়। তাতে প্রতিকেজি ইউরিয়া সারের দাম দাঁড়াচ্ছে ৫৯ টাকা ৭৩ পয়সা।

অতিরিক্ত সচিব জিল্লুর বলেন, কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীন বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশন (বিএডিসি) সার কেনার পৃথক তিনটি প্রস্তাব বৈঠকে উত্থাপন করে। তিনটি প্রস্তাবেই সারের দাম আগের তুলনায় কমেছে।

এছাড়া বৈঠকে কানাডিয়ান কমার্শিয়াল করপোরেশনের কাছ থেকে চতুর্থ লটে ২৪২ কোটি ৫৩ লাখ ৫০ হাজার টাকায় ৩০ হাজার টন ডিএপি সার আমদানির অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এতে প্রতিকেজি দাম পড়েছে ৮০ টাকা। ডলারের হিসাবে প্রতিটন ডিএপির দাম পড়েছে ৮৭৮ দশমিক ৭৫ ডলার।

একই সঙ্গে মরক্কোর ওসিপি থেকে ষষ্ঠ লটে প্রতিকেজি ১০৫ টাকা দরে ৪২০ কোটি ৪৪ লাখ টাকায় ৪০ হাজার টন ডিএপি এবং একই কোম্পানির কাছ থেকে সপ্তম লটে প্রতিকেজি ৮৪ টাকা দরে ২৫২ কোটি ৪০ লাখ ২০ হাজার টাকায় ৩০ হাজার টন টিএসপি সার আমদানির অনুমোদন দেওয়া হয়।

কৃষি মন্ত্রণালয় ২০২১-২২ অর্থবছরে প্রতি কেজি ইউরিয়া আমদানিতে গড়ে ৯৬ টাকা, টিএসপি ৭০ টাকা, এমওপি ৫৪ টাকা ও ডিএপিতে ৯৩ টাকা ব্যয়ের প্রাক্কলন করেছে। এর আগে ২০২০-২১ অর্থবছরে প্রতি কেজি ইউরিয়া সারের আমদানি মূল্য ছিল ৩২ টাকা, টিএসপি ৩৩ টাকা, এমওপি ২৩ টাকা, ডিএপি ৩৭ টাকা।

আর ভুর্তকি দিয়ে সরকার কৃষক পর্যায়ে ১৬ টাকা কেজি দরে ইউরিয়া, ২২ টাকা কেজি দরে টিএসপি, ১৫ টাকা কেজি দরে এমওপি এবং ১৬ টাকা কেজি দরে ডিএপি সার বিক্রি করছে।

Spread the love

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এ বিভাগের আরও খবর
এই নিউজ পোর্টাল এর কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি ও দণ্ডনীয় অপরাধ ।  About Us | Contact Us | Terms & Conditions | Privacy Policy
Design & Developed by RJ Ranzit
themesba-lates1749691102