• বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ০৩:১৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
বেনাপোল সীমান্তে বিএসএফের গুলি বর্ষণের শঙ্কা, সতর্কতায় বিজিবির মাইকিং খুলনা বিভাগে শপথ নিলেন দ্বিতীয় ধাপে জয়ী চেয়ারম্যানগণ সিরাজগঞ্জে ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত দাবি হামার একটাই ঠাকুরগাঁওয়ে বিমানবন্দর ও মেডিকেল কলেজ চাই জয়পুরহাটে রাস্তা কেটে সরু করায় দূর্ভোগে অর্ধশতাধিক পরিবার বেনাপোলে ঈদকে ঘিরে টুং-টাং শব্দে ব্যস্ত কামার শিল্পীরা! শিবরাম আদর্শ পাবলিক স্কুলে ফল উৎসব পালিত দেশের চেয়ে কম দামে বিদ্যুৎ দিচ্ছে নেপাল খুলছে বাংলাদেশের তৃতীয় বৃহত্তম শ্রমবাজার, বৈধতা পাবেন ৯৬ হাজার বাংলাদেশি ব্যাংকের খরচে কর্মকর্তাদের বিদেশ যাত্রায় নিষেধাজ্ঞা বিদেশি বিনিয়োগ ও অপারেশনাল মডেলের নবযুগের সূচনা মালয়েশিয়া যেতে না পারাদের টাকা ফেরতের চেষ্টা টিসিবির জন্য ৫৩৭ কোটি টাকার ডাল-তেল কিনবে সরকার ডেঙ্গু মোকাবিলায় ৫২ কোটি টাকা বরাদ্দ পুলিশের মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে কাজ করা হচ্ছে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আর্থ-সামাজিক উন্নয়নেও কাজ করছে রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়ন্স অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ করলেন প্রধানমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের ঘর তৈরি করে দেব সলঙ্গা নলকা ইউনিয়নে ঈদ উপহার বিতরণ ঈদুল আজহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি আজিজুল বারী হেলাল

কাজিপুর (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি:

কাজিপুরের চরাঞ্চলে বাঁধ ভেঙে ৪শ বিঘা জমির ধান তলিয়ে গেছে

কলমের বার্তা / ৭৪৩ বার পড়া হয়েছে।
সময় কাল : শনিবার, ১৬ এপ্রিল, ২০২২

কাজিপুর উপজেলার যমুনা নদীর চরাঞ্চলের চরগিরিশ ইউনিয়নের উত্তর চরনাটিপাড়ায় বাঁধ ভেঙে ৪শ বিঘা জমির ধান পানিতে ডুবে গেছে। এতে করে ২৫০ জন প্রান্তিক কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। যাদের অধিকাংশই বর্গাচাষি।

গত মঙ্গলবার ১১ এপ্রিল রাতে স্থানীয় কৃষকদের উদ্যোগে নির্মিত বাঁধটি উজানের ঢলে যমুনা নদীতে পানি বৃদ্ধির কারনে ভেঙ্গে যায়। ক্ষতিগ্ৰস্থ কৃষকেরা ঘটনার এক সপ্তাহ দিন পেড়িয়ে গেলেও সরকারি পর্যায়ের সংশ্লিষ্ট কেউ খোঁজ না নেয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

উত্তর চরনাটিপাড়া গ্ৰামের ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক হোসেন আলী জানান দাদনের উপর ২০ হাজার টাকা নিয়ে ৩ বিঘা জমিতে ধান লাগিয়েছিলেন, সম্পূর্ণ নষ্ট হয়ে গেছে, ৬ জনের সংসারের সাড়া বছরের চালের খরচ আসতো।

ভুক্তভোগী ভেটুয়া গ্ৰামের গোলজার হোসেন (৬২), চরনাটিপাড়া গ্ৰামের আব্দুল মজিদ (৫২), জুড়ান আলী (৪৫), বকুল, শাহজামাল, আছের আলী, আলামিন, আব্দুল হামিদ, সাইফুলসহ ক্ষতিগ্রস্ত অন্যান্য কৃষকদের ভাষ্য একই রকম প্রায়। তারা জানান যমুনা নদীর এই কোলে বছরে একবার মাত্র চাষাবাদের সুযোগ মেলে।

স্থানীয় রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব নুরু তালুকদার জানান স্থানীয় কৃষকদের উদ্যোগে প্রতিবছর যমুনা নদীর কোলের এ অংশে বাঁধ নির্মাণ করে তারা ধান চাষাবাদ করেন, এবার অপ্রত্যাশিতভাবে অসময়ে নদীতে অতিরিক্ত পানি বৃদ্ধির কারণে বাঁধটি ভেঙ্গে যাওয়ার ২৫০ জন কৃষক অপুরণীয় ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন।

সরেজমিনে পরিদর্শনকালে স্থানীয় কৃষকেরা স্থায়ী বাঁধ নির্মাণের জন্য সংসদ সদস্য ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের সুদৃষ্টি কামনা করেন, এছাড়াও ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের সরকারি সহায়তা প্রদানের জন্য সংশ্লিষ্ট কৃষি কর্মকর্তা কর্তৃক পরিদর্শনের দাবি জানান। চরগিরিশ ইউপি চেয়ারম্যান এস এম জিয়াউল হক ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান কৃষকের অপুরণীয় ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতি পুষিয়ে নিতে কৃষি বিভাগকে সচেষ্ট থাকার আহ্বান জানান তিনি। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রেজাউল করিম জানান স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সমন্বয়ে ক্ষতিগ্রস্থদের তালিকা করে সরকারি কৃষি প্রণোদনা বা পুনর্বাসনের আওতায় আনা হবে।

178


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর