• শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:১৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
সিরাজগঞ্জ সদরে প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শনীর শুভ উদ্বোধন অসহায় হাকিম ও আয়শা দম্পতির সহানুভ‚তি নিবাসের উদ্বোধন উল্লাপাড়ায় জামাত নেতার সাথে ছবি ভাইরালের ঘটনায় সংবাদ সম্মেলন ফের আশা জাগাচ্ছে লালদিয়া চর কনটেইনার টার্মিনাল ‘মাই লকারে’ স্মার্টযাত্রা আগামী সপ্তাহে থাইল্যান্ড সফরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী মধ্যপ্রাচ্য পরিস্থিতির ওপর নজর রাখার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর লালমনিরহাটে প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শনী ২০২৪ অনুষ্ঠিত! ব্যাংকের আমানত বেড়েছে ১০.৪৩ শতাংশ সিরাজগঞ্জে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত বঙ্গবাজারে দশতলা মার্কেটের নির্মাণ কাজ শুরু শিগগিরই বেঁচে গেলেন শতাধিক যাত্রী ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস আজ মন্ত্রী-এমপিদের প্রভাব না খাটানোর নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর মুজিবনগর দিবসে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বাণী বাস ও সিএনজি মুখোমুখি সংঘর্ষ নিহত-১  লালমনিরহাটে বিএসএফের গুলিতে ইউপি সদস্য আহত গাজীপুরে বয়লার বিস্ফোরণে চীনা প্রকৌশলীর মৃত্যু,আহত ৬ বাংলাদেশী কোনাবাড়ীতে অটোরিক্সার চাপায় ৩ বছরের শিশু মৃত্যু দ্বাদশ সংসদের দ্বিতীয় অধিবেশন বসছে ২ মে

দক্ষিণ কোরিয়ার উদ্দেশে ১৩৭ শ্রমিকের ঢাকা ত্যাগ

কলমের বার্তা / ১২৫ বার পড়া হয়েছে।
সময় কাল : শুক্রবার, ৮ এপ্রিল, ২০২২

দক্ষিণ কোরিয়ায় আবারো বাংলাদেশের এমপ্লয়মেন্ট পারমিট সিস্টেমে (ইপিএস) শ্রমিক যাওয়া শুরু হয়েছে। সর্বশেষ গত বুধবার রাত ১১টায় কোরিয়ান এয়ারের একটি চার্টার্ড ফ্লাইটে ১৩৭ শ্রমিক ঢাকার হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করেন। বাংলাদেশসহ ১৬টি দেশ থেকে ইপিএস প্রোগ্রামের মাধ্যমে মাঝারি ও নিম্ন-দক্ষ বিদেশী কর্মী নিচ্ছে দক্ষিণ কোরিয়া। ১৬টি দেশের আহ্বান ও অনুরোধে সাড়া দিয়ে আবারো সীমিত পরিসরে শ্রমিক নেয়া শুরু করেছে দক্ষিণ কোরিয়া।

উল্লেখ্য, ২০২০ সালের দিকে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ব্যাপকহারে ছড়িয়ে পড়লে দক্ষিণ কোরিয়া বিদেশী শ্রমিক নেয়ার কার্যক্রম স্থগিতের সিদ্ধান্ত নেয়। প্রায় ২১ মাস পর ২০২১ সালের ডিসেম্বর থেকে আবারো শ্রমিক যাওয়া শুরু হয়। মহামারী নিয়ন্ত্রণে আসার পর ৩৫৩ জন বাংলাদেশী ইপিএস শ্রমিক কোরিয়ার উদ্দেশে ঢাকা ছেড়ে যান। গত মাসে পাড়ি জমান আরো ১৫০ জন শ্রমিক।

তবে চলতি বছরে যে ৯২ জন কর্মী দেশটিতে গেছেন তার মধ্যে ৪৪ জন নতুন নিয়োগ পাওয়া। বাকি সবাই পুরনো শ্রমিক। গতকাল বৃহস্পতিবার দক্ষিণ কোরিয়ার বাংলাদেশ দূতাবাস সংশ্লিস্টরা জানান, বুধবার রাতের ফ্লাইটে সিউল পৌঁছা বাংলাদেশী কর্মীদের একজন পারভেজ হাওলাদার বলছেন, সব ধরনের বিপদ আপদ শেষেই আমরা সুন্দরভাবে দক্ষিণ কোরিয়ার কর্মস্থলে পৌঁছতে পেরেছি।

সবাই আমাদের জন্য দোয়া করবেন। ঢাকায় নিযুক্ত দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত লি জ্যাং গুন বলেছেন, বাংলাদেশী শ্রমিকরা কোরিয়া-বাংলাদেশ সম্পর্কের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। শুধু বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে নয় কোরিয়ান শিল্পেও শ্রমশক্তি সরবরাহে অবদান রেখেছে বাংলাদেশী শ্রমিকরা। তিনি বাংলাদেশ থেকে আরো বেশি ইপিএস শ্রমিক নেয়া হবে বলেও আশার কথা জানান। বলাবাহুল্য, এই পদ্ধতিতে ২০ হাজারের বেশি শ্রমিক দক্ষিণ কোরিয়াতে পাড়ি জমিয়েছেন বলে বাংলাদেশ দূতাবাস সূত্রে জানা গেছে।
এ দিকে দক্ষিণ কোরিয়ার সিউলে নিযুক্ত বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে জানানো হয়েছে, যেসব বাংলাদেশী শ্রমিক কোরিয়ায় সফলভাবে কাজ শেষে দেশে ফিরে গেছেন তাদের ই-৭ ভিসায় কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টির চেষ্টা করা হচ্ছে।

দূতাবাসের দ্বিতীয় সচিব ও দূতালয় প্রধান মিসপি সরেন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ই-৯ ভিসায় দক্ষিণ কোরিয়ায় যেসব শ্রমিক সফলভাবে বিভিন্ন কোম্পানিতে কাজ করে বাংলাদেশে ফিরে গেছেন এবং যাদের ওয়েল্ডিং ও পেইন্টিংয়ে অভিজ্ঞতা রয়েছে তাদের ই-৭ ভিসায় কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টির জন্য সিউলের বাংলাদেশ দূতাবাস চেষ্টা করে যাচ্ছে। দূতাবাস ওয়েল্ডিং ও পেইন্টিংয়ের কাজে অভিজ্ঞতাসম্পন্ন ব্যক্তিদের ডাটাবেস প্রস্তুত করার উদ্যোগ নিয়েছে। বাস্তব অভিজ্ঞতা সম্পন্ন এবং গ্র্যাজুয়েট ডিগ্রিধারীদের বিজ্ঞপ্তির সাথে প্রদত্ত গুগল ডকসে প্রয়োজনীয় তথ্য প্রদান করার জন্য অনুরোধ জানানো হয়। এ ক্ষেত্রে দক্ষিণ কোরিয়ায় ওয়েল্ডিং অথবা পেইন্টিংয়ের কাজের অভিজ্ঞতা ছাড়াও বাংলাদেশের কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্র্যাজুয়েট ডিগ্রিধারী ও বয়সসীমা সর্বোচ্চ ৩০-৪৫ এর মধ্যে থাকার শর্ত দেয়া হয়েছে।

93


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর